শিরোনাম :

কৃষক এসএম আব্দুল্লাহ মালটা চাষে সফল


সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭, ০৪:০৮ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

কৃষক এসএম আব্দুল্লাহ মালটা চাষে সফল

নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারী ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ী ইউনিয়নের কাঠাঁলতলী গ্রামে উন্নতজাতের লিচু, আম ও মালটা চাষ করে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে কৃষক এসএম আব্দুল্লা।

৩ একর জমিতে ১২ বছর পূর্বে ৫০টি মালটা চারা রোপন করেন। ১ বছরের মধ্যে গাছে ফল ধরে। মালটা মৌসুমে প্রতিটি মালটা গাছে প্রায় ২ মন করে মালটা ধরে। তার বাগানের সুনাম রয়েছে এলাকা জুড়ে। অন্যান্য মালটার চেয়ে তার বাগানের মালটা খেতে সু-স্বাদু এবং বাজারে প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

তিনি বলেন, মালটা বাগান করেছি ১২ বছর আগে, এই মালটা গুলো বেশী ভাগই নাগপুরী, দাজিলিং ও পাকিস্তানের। সেখানে মালটার পাশাপাশী লিচু ও আম, নারকেল, বেল, মিষ্টি কামরাঙ্গা, উন্নত জাতের ফুল, ব্লাক লিলি, বেগুনী গোলাপ অন্যতম। এখানে দুর দরান্ত থেকে মানুষ আসে বাগান দেখতে।

মালটা চাষে বেশ লাভজনক হওয়ায় এবার ১৫ একর জমির প্রজেক্ট হাতে নিয়েছি। অপর দিকে মালটার চারা গাছের চাহিদা থাকায় বাণিজ্যিক ভাবে বিক্রির জন্য গত বছর বিদেশী উন্নত জাতের নাগপুরী, দার্জিলিং, মরক্কো, ভারত, পাকিস্তানী এবং সরকারী বারী-১ জাতের আবারো ৭শত মালটা চারা রোপন করে।

এ গুলো আগামী বছরে মধ্যে ফল ধরবে বলে তিনি আশা করেন। এখানে বিভিন্ন এলাকার ফল বিক্রেতা এসে মালটা নিয়ে যায় বাজারে। তিনি আরো বলেন, বাগানে আমি কোন কিটনাশক ব্যবহার না করে নিজস্ব প্রযুক্তির উদ্ভাবিত তৈরী ভেষন ও ঐষধের দ্বারা পোকা মাকড় নিধিন করি।

উপজেলা কৃৃষি কর্মকর্তা জাফর ইকবাল বলেন, আমরা সরকারী ভাবে উৎসাহ দিচ্ছি তাকে, ডোমারের মাটির উর্বরতা হিসাবে মালটা চাষের ব্যপক সম্ভাবনা রয়েছে। এলাকায় মালটা চাষ বৃদ্ধি পেলে দেশের চাহিদার পাশাপাশী বিদেশে রফতানী করতে পারবো বলে তিনি আশা করেন।

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন