শিরোনাম :

সিআইডির তদন্তে মামলার বাদী-ই হত্যাকারী!


মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭, ০৬:৩৯ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

বরিশাল প্রতিনিধি: জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার দক্ষিণ বাগধা গ্রামের চাঞ্চল্যকর ইউনুস খন্দকার হত্যা মামলাটি নাটকীয় মোড় নিয়েছে। সিআইডির তদন্তে মামলার বাদীই হত্যাকারী হিসেবে সনাক্ত হয়েছে।

সিআইডির বরিশাল জোনের ওসি মোঃ সেলিম শাহ নেওয়াজ জানান, ২০১৫ সাালের ২৯ নভেম্বর বিকেলে দক্ষিণ বাগধা গ্রামে রাস্তা নির্মাণকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওইসময় প্রতিপক্ষের হামলায় ইউনুস খন্দকার গুরুতর আহত হয়। এ ঘটনায় ইউনুসের চাচাতো ভাই বাদশা খন্দকার বাদি হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। মুমূর্ষু অবস্থায় ইউনুস খন্দকার ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। পরবর্তীতে ওই মামলাটি হত্যা মামলায় রুপান্তির হয়।

তিনি আরও জানান, ওই মামলার তদন্তভার পুলিশের হাত ঘুরে ডিবি’র হাতে যায়। ডিবি পুলিশ ১৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করার পর নিহত ইউনুসের স্ত্রী তাছলিমা বেগম চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজি দাখিল করার পর আদালতের বিচারক মামলাটি তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেন। এর আগে নিহত ইউনুস খন্দকারের স্ত্রী তাছলিমা বেগম হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় মামলার বাদি বাদশার বিরুদ্ধে আদালতে একটি সিআর মামলাও দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির এসআই মেহেদী হাসান জানান, উল্লেখিত ঘটনায় চলতি বছরের ১ সেপ্টেম্বর সোহেল মিয়া নামের একজনকে গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করেন।

সোহেল ১৬৪ ধারায় আদালতে ইউনুস খন্দকার হত্যায় খুনি হিসেবে তার চাচাতো ভাই ও বরিশাল আদালতের আইনজীবী সহকারী বাদশা খন্দকরের নাম বলেন।

সোহেলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বাদশাকে রবিবার রাতে গ্রেফতার করে সোমবার অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। তদন্তকারী অফিসার আদালতে বাদশার পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালতের বিচারক সিহাবুল ইসলাম রিমান্ড আবেদন পরবর্তী শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন