শিরোনাম :
   জাগো বাংলাতে সাংবাদিকতায় চাকরির সুযোগ    ইরানকে নিয়ে সমালোচনার কড়া জবাব দিলেন হাসান রুহানি    রোহিঙ্গা সংকট: নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান    সু চিকে ‘যুদ্ধাপরাধী’ হিসেবে ফৌজদারি আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর সুপারিশ    আজকের রাশিফল: ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার, ২০১৭    নিজেদের মাঠে বেটিসের কাছে হেরে গেল রিয়াল মাদ্রিদ    মিয়ানমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত: জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান    রোহিঙ্গাদের সহায়তায় ২৬২ কোটি টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র    রোহিঙ্গা হত্যার প্রতিবাদে বরিশালে ধ্রুবতারার মানববন্ধন অনুষ্ঠিত    সাপাহারে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তাগুলো  দ্রুত সংস্কারের দাবী এলাকাবাসীর 

তিন লাখ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ, খাবারের জন্য হাহাকার


মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০১:২৬ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

তিন লাখ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ, খাবারের জন্য হাহাকার

নিজস্ব প্রতিবেদক: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত ২৫ আগষ্ট থেকে বর্মি বাহিনীর নির্যাতনের পর থেকে বাংলাদেশের সীমান্ত দিয়ে বানের স্রোতের মতো রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করছে।আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো তাদের প্রতিবেদনে ৯০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকার কথা বললেও বাস্তবে চিত্রতা ভিন্ন।বিভিন্ন পরিসংখ্যানে গেল দেড় সপ্তাহে অন্তত তিন লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।এসব রোহিঙ্গা জঙ্গলে, পাহাড়ী টিলায় আশ্রয় নেয়ায় পানীয় জল পাচ্ছেনা।খাবারের জন্য করছে হাহাকার। 

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউনিএইসসিআর’র আঞ্চলিক মুখপাত্র ভিভিয়ান ট্যান বার্তা সংস্থা রয়াটার্সেক জানিয়েছিলেন ৭৩ হাজার রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করেছে। তবে স্থানীয় লোকজন ও পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারদের ভাষ্যমতে, এবারে অনুপ্রবেশকারীর সংখ্যা আরো অনেক বেশি। তাদের দাবি, এবারে প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে। এদের মধ্যে কুতুপালং রেজিষ্ট্রার ও আনরেজিষ্ট্রার ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে দেড় লাখ, বাকিরা তুমব্রু, ঘুমধুম, বালুখালি,উখিয়া-টেকনাফ, নাইক্ষ্যংছড়ির বিভিন্ন পাহাড়ে ইতোমধ্যে তারা আশ্রয় নিয়েছে।

কুতুপালং অনিবন্ধিত ক্যাম্পের মাঝি আবু ছিদ্দিক ও মুহাম্মদ নূর বলেন, আমাদের ক্যাম্পে গত ২৫ আগস্টের পর থেকে এ পর্যন্ত অর্ধ লাখেরও বেশি নতুন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আশপাশে আশ্রয় নিয়েছে। কুতুপালং এবং নয়াপাড়া শরণার্থী শিবিরে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। নতুন ব্লকের দায়িত্বশীল আবদুল্লাহ জানান, টিভি টাওয়ারের আশপাশে অন্তত ২০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা নতুন করে ঝুপড়ি ঘর তৈরি করে অবস্থান নিয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন খালি জায়গায় নতুন রোহিঙ্গা বসতি গড়ে ওঠছে।

বালুখালী ক্যাম্পের মাঝি ইলিয়াছ ও ছৈয়দ নূর জানান, তাদের ক্যাম্প ও আশপাশ এলাকায় নতুন করে অর্ধলাখ রোহিঙ্গা খোলা আকাশের নিচে অবস্থান করছে। যে যেভাবে পারছে, যেখানে পাচ্ছে সেখানেই আশ্রয় নিচ্ছে। যখন রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকে এসব ক্যাম্পে আসে তখন তাদের তাড়িয়ে দেয়ার সুযোগ থাকে না।

কুতুপালং ও বালুখালী এবং লেদা রোহিঙ্গা বস্তি নিয়ন্ত্রণকারী মাঝিদের দাবি, তাদের একেক বস্তিতে নতুন করে ৫০ হাজারের অধিক রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। নতুন করে থাইংখালীতে বস্তি গড়ে তোলা হয়েছে। সব মিলে নতুন করে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সংখ্যা দেড় লাখের বেশি।

এদিকে, প্রাণ নিয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা এসব রোহিঙ্গা প্রয়োজনীয় ত্রাণ ও মানবিক সহায়তা পাচ্ছেন না। খাবার ও পানির তীব্র সঙ্কটে খোলা আকাশের নিচে দিনাতিপাত করছেন তারা। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জাতিগত সহিংসতার শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আশা রোহিঙ্গারা আশ্রয়ের খোঁজে পাহাড়-সমতল ও রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে। অচিন এলাকায় যে যেখানে পারছেন সেখানেই মাথা গোঁজার ঠাঁই নিচ্ছে। ফলে উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তের পাহাড়ি এলাকায় নতুন করে গড়ে উঠছে ঝুপড়ি ঘর। তবে, বিভিন্ন ভাষ্যে ওঠে এসেছে, অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের জন্য বিষফোঁড়ায় পরিণত হবে। তাদের প্রতি বেশী অনুকম্পা দেখানো উচিত হবেনা। রোহিঙ্গা বাংলাদেশে স্থায়ী বসবাসের সুযোগ পেলে নিয়ন্ত্রণ করা দায় হয়ে যাবে। হুমকীর মুখে পড়তে পারে আইন শৃঙ্খলা।

সীমান্তবর্তী বাংলাদেশীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নতুন করে কয়েক হাজার ঝুপড়ি ঘর তৈরি করেছে নতুন করে আসা রোহিঙ্গারা। সেই সঙ্গে প্রতিদিন বানের স্রোতের মতো রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে ঢুকছে। যে যেখানে পারছে সেখানেই আশ্রয় নিচ্ছে।নাম প্রকাশ না করার শর্তে সীমান্ত এলাকার এক জনপ্রতিনিধি বলেন, ঈদের দিন ঘুমধুম সীমান্তে জাফর-আয়েশা দম্পতি মিয়ানমার সেনাদের গুলিতে খুন হওয়ার পরই রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ আশঙ্কাজনকহারে বেড়েছে। প্রতিটি সীমান্ত দিয়ে দলে দলে রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকছে। শিশু-বৃদ্ধদের কোলে-কাঁধে করে নিয়ে আসছে তারা। যেসব সীমান্তে বিজিবির কড়া অবস্থান রয়েছে সেখানের জিরো পয়েন্টে অবস্থান করছে রোহিঙ্গা। রাতে কিংবা বৃষ্টিতে যে যার সুযোগ মতো বাংলাদেশে ঢুকে পড়ছে। গত কয়েকদিনে এক লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে। এর মধ্যে রোববার রাতে ঢুকেছে ২০ হাজারেরও বেশি।

এদিকে, সীমান্তের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে গেছেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন, পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে প্রশাসনের উর্ধ্বতনমহল। রোহিঙ্গা হিন্দুদের বর্তমান অবস্থা ঘুরে দেখেছেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতারা। সরেজমিন নির্যাতিত হিন্দুদের দুঃখ-দুর্দশার কথা শুনেছেন আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত।

সীমান্ত এলাকা ঘুরে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিগত সময়ের চেয়ে এবার রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঘটেছে অনেক বেশি। উখিয়া-টেকনাফ উপজেলার বন বিভাগের জায়গা দখল করে আরও ৩টি অস্থায়ী ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে। ফলে সীমান্ত এলাকার মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এরা সহায়-সম্বল রেখে প্রাণ বাঁচাতে এদেশে আশ্রয় নিলেও বাঁচার তাগিতে এরা অপরাধকর্মে জড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।নতুন করে লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে স্বীকার করেছেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন। তিনি বলেন, গত কয়েকদিন আশঙ্কাজনকহারে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে ঢুকেছে। ঠিক কত সংখ্যক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তবে এর সংখ্যা এক লাখের বেশি।

আইকে

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন