শিরোনাম :

ডিসি-খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা


বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০১:১৯ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

ডিসি-খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নওগাঁ প্রতিনিধি:  খাদ্য নীতিমালা ভঙ্গ করার অভিযোগে নওগাঁর জেলা প্রশাসক (ডিসি), জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ নয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার নওগাঁ সদর উপজেলার সুলতানপুর এলাকার নিশি চালকলের মালিক শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে জ্যেষ্ঠ সহকারী জজ আদালতে এ মামলা করেন। আদালত বাদীর আবেদন গ্রহণ করে ২০ সেপ্টেম্বর শুনানির দিন ধার্য করেন। আসামিরা হলেন- নওগাঁর ডিসি, জেলা সংগ্রহ ও মনিটরিং কমিটির সভাপতি ড. মো. আমিনুর রহমান, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আনোয়ার হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং সদর উপজেলা সংগ্রহ ও মনিটরিং কমিটির সভাপতি হাসিনা আকতার, সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ আলী, সদর খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অরুণ কুমার প্রামাণিক, নওগাঁ জেলা চালকল মালিক গ্রুপের সভাপতি তৌফিকুল ইসলাম, সদর উপজেলা চালকল মালিক গ্রুপের সভাপতি আবদুল মোতালেব তালুকদার, কনিকা-২ চালকলের স্বত্বাধিকারী মেহেদী হাসান ও মাহবুব চালকলের স্বত্বাধিকারী মাহবুবুর রহমান। আদালতে বাদীর আবেদন সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে সদর উপজেলার ৩৫৬ জন বৈধ লাইসেন্সধারী মিল মালিক সরকারি খাদ্যগুদামে চাল সরবরাহের জন্য তালিকাভুক্ত হন। এর একটি ৩৪৯ নম্বর নজিবর চালকল। এ কলটির মালিকানা নিয়ে তিন ভাই শফিকুল ইসলাম, সাজ্জাদ হোসেন ও জিল্লুর রহমানের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এ কারণে চালকলটি তাদের বরাদ্দকৃত ৬৭ টন চাল খাদ্যগুদামে সরবরাহ করতে নির্ধারিত সময় ৩১ মের মধ্যে চুক্তি করতে পারেনি। এমন পরিস্থিতিতে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ৬৭ টন চাল বরাদ্দ স্থগিত রাখেন। খাদ্য নীতিমালা অনুযায়ী, জেলা খাদ্য সংগ্রহ কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ৬৭ টন চাল ৩৫৫ জন মিল মালিকের মধ্যে পুনরায় বরাদ্দ করতে পারেন। কিন্তু জেলা সংগ্রহ কমিটির সিদ্ধান্ত না নিয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আনোয়ার হোসেন গত ৩০ আগস্ট কনিকা-২ ও মাহবুব চালকলের নামে ৬৭ টন চাল পুনরায় বরাদ্দ দেন, যা সম্পূর্ণ বেআইনি ও খাদ্য নীতিমালার পরিপন্থী। পুনরায় বরাদ্দকৃত মিলের অস্তিত্ব না থাকা প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘সব সময় সঠিকভাবে যাচাই করে মিলের বরাদ্দ দেওয়া সম্ভব হয় না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে কিছু অনিয়ম থেকেই যায়। সঠিকভাবে যদি খাদ্য বিভাগ নওগাঁর চালকলগুলো তদারকি করে, তাহলে অনেক মিল মালিক চাল বরাদ্দের তালিকা থেকে বাদ পড়বে।’ তিনি বলেন, এ জন্য চালকল মালিক গ্রুপ যেভাবে আমাদের তালিকা দেয়, আমরা ওই তালিকা অনুসারে চালের বরাদ্দ বণ্টন করি। কোনো মিল মালিকের পক্ষে চালকল মালিক গ্রুপ সুপারিশে অনিয়ম করে থাকলে দায়ভার গ্রুপের নেতাদেরই নিতে হবে। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আনোয়ার হোসেন জানান, খাদ্য নীতিমালা মেনে দুটি চালকলকে পুনরায় বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। সংগ্রহ ও মনিটরিং কমিটি এবং চালকল মালিক গ্রুপের নেতাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম করা হয়নি। বাংলাপ্রেস.কম.বিডি/এমবি

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন