শিরোনাম :

কেরানীগঞ্জের অপহরণ মামলার প্রধান আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’নিহত


মঙ্গলবার, ১ আগস্ট ২০১৭, ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

কেরানীগঞ্জের অপহরণ মামলার প্রধান আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’নিহত

কেরানীগঞ্জের শিশু পরাগ অপহরণ মামলার প্রধান আসামি মোক্তার হোসেন ওরফে ল্যাংড়া আমির ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার দিবাগত রাত পৌনে দুইটার দিকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের মীরেরবাগ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত এই বন্দুকযুদ্ধ হয়।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম  বলেন, পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মোক্তার হোসেন নিহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল ও দুটি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

আমিরের লাশ উদ্ধার করে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার পুলিশ বলছে, ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পরে জানানো হবে।

পুলিশ বলছে, আমিরের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের মীরকাদিম এলাকায়। একসময় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের পশ্চিমপাড়া এলাকায় জমির ব্যবসায় যুক্ত ছিলেন। এরপর হাসনাবাদ এলাকায় আবাস গড়েন। ঠিকমতো হাঁটতে না পারার জন্য তাঁর নামের সঙ্গে ‘ল্যাংড়া’ শব্দটি জুড়ে দেয় এলাকাবাসী। তাঁর চলাচলের একমাত্র বাহন ছিল মোটরসাইকেল। সহযোগীরা মোটরসাইকেল চালাতেন, আর আমির পেছনে বসে থাকতেন।

২০১২ সালের ১১ নভেম্বর সকালে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যার পশ্চিমপাড়ায় বাসার গলির মুখ থেকে মা, বোন ও গাড়িচালককে গুলি করে শিশু পরাগ মণ্ডলকে অপহরণ করে আলোচনায় আসেন আমির। এর আগেই অবশ্য তাঁর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা হয়।

আমিরকে কেরানীগঞ্জের ত্রাস হিসেবে অভিহিত করে আসছিল পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন। কেরানীগঞ্জের কয়েকজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ইতিমধ্যে আমিরের হাতে গুলিবিদ্ধ হন।

পুলিশের কর্মকর্তারা বলেন, পুলিশের কাছ থেকে পালানোর পর চলতি বছরের মার্চ থেকে কেরানীগঞ্জ এলাকায় আবারও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড শুরু করেন আমির। গত ২২ মার্চ চিকিৎসক দম্পতি আবু নোমান ও শাহানা নোমানের রিকশা থামিয়ে ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে চিরকুট দেন ল্যাংড়া আমির। চিরকুট দেওয়ার সময় গুলি ছুড়ে আহত করেন তাঁদের বহনকারী রিকশাচালককে। চলে যাওয়ার সময় বলেন, ২০ লাখ টাকা না দিলে পরের গুলিটা তাঁদের বুকে করা হবে। এরপর আতঙ্কে কেরানীগঞ্জ ছাড়েন ওই দম্পতি।

গত ২২ মে দিনদুপুরে জিয়ানগর এলাকায় ব্যবসায়ী নুরুল ইসলামের রিকশা থামিয়ে একই কায়দায় তাঁর পায়ে গুলি করেন আমির। সর্বশেষ গত মাসে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদ এলাকায় ব্যবসায়ী শাহ আলমের বুকে গুলি করেন আমির।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন