শিরোনাম :
   বাংলাদেশের বডিবিল্ডার সাকিব চতুর্থ    সিআইডির তদন্তে মামলার বাদী-ই হত্যাকারী!    বরিশালে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়াবাসহ গ্রেফতার    যৌতুকের দাবিতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ    কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় দিনেও উপাচার্যের কার্যালয়ে শিক্ষক সমিতির তালা    কুবিতে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয়    ৩৬তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ    সালমান শাহ’র মায়ের বিরুদ্ধে সামিরার মায়ের ১০ কোটি টাকার মামলা    খালেদা জিয়া দেশে ফিরলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী    রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতে বিশ্ব সম্মেলনের ডাক দিয়েছে জাতিসংঘ

গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধারঃ বনশ্রীতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ


শনিবার, ৫ আগস্ট ২০১৭, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধারঃ বনশ্রীতে  পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ

রাজধানীর বনশ্রীতে এক গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধারের পর তাকে হত্যার অভিযোগ এনে ওই বাড়িতে হামলার পাশাপাশি পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছে স্থানীয়রা।
 
খিলগাঁও থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বিক্ষোভকারীরা শুক্রবার বিকালে বনশ্রী জি ব্লকের চার নম্বর রোডের ওই সাত তলা বাড়ি প্রায় দুই ঘণ্টা ঘিরে রাখে এবং একটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয়।

পরে পুলিশ টিয়ার শেল ছুড়ে পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আনলেও সন্ধ্যার পর অলিগলিতে অবস্থান নিয়ে পুলিশের দিকে ঢিল ছুড়তে থাকেন বিক্ষুব্ধরা। এ সময় পুলিশ ফাঁকা গুলি ছোড়ে বলেও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।  

স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ ওই বাড়ির মালিক মুন্সী মইন উদ্দিন ও দারোয়ান রহিমকে আটক করেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে বলে খিলগাঁও জোনের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার নাদিয়া জুঁই জানিয়েছেন।

মুন্সী মইন উদ্দিনের বাড়ির গৃহকর্মী লাইলী আক্তারকে (২৫) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মইন উদ্দিন হাসপাতালে পুলিশের কাছে দাবি করেন, সকালে বাসায় কাজ করতে এসে একটি কক্ষে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেন লাইলী। ডাকাডাকির পর দরজা না খোলায় বাড়ির ম্যানেজার এসে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়ানা প্যাঁচানো অবস্থায় লাইলীকে দেখতে পান।

মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মো. বাচ্চু মিয়া বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, লাইলীর গলায় কালো দাগ ছিল। শরীরের অন্য কোথাও আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি।

কিন্তু লাইলী আক্তারকে কুপিয়ে হত্যার গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় নিম্ন আয়ের মানুষ বিকালে ওই বাড়ির সামনে জড়ো হয়ে ঢিল ছুড়তে শুরু করে। তারা বাড়ির ফটক ভাঙার চেষ্টা করে এবং সামনে থাকা একটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, গাড়িতে আগুন দেওয়ার খবর পেয়ে তাদের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়। কিন্তু উত্তেজিত জনতা ফায়ার সার্ভিসের গাড়িকেও বাধা দেয়।

পুলিশ ওই বাড়ির সামনে থেকে জনতাকে সরানোর চেষ্টা করলেও বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ চলে। এক পর্যায়ে পুলিশ টিয়ার শেল ছোড়ে।

পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘর্ষ থামলেও সন্ধ্যায় শত শত মানুষকে ওই বাড়ির সামনের রাস্তায় ভিড় করে থাকতে দেখা যায়। বাড়ির মালিক মইন উদ্দিন ও তার স্ত্রীকে নিয়ে নানা অভিযোগের কথা তারা সাংবাদিকদের বলেন।

রুবি নামের এক নারী বলেন, তিনিও এক সময় মইন উদ্দিনের বাড়িতে কাজ করতেন। তিন মাস কাজ করার পর তাকে কোনো টাকা দেওয়া হয়নি। এরকম অনেককেই টাকা না দিয়ে বের করে দেওয়া হয়েছে।

মইন উদ্দিনের বাড়িতে কাজ করতে গিয়ে মারধরের শিকার হওয়ার কথাও বলেন বাড়ির সামনে জড়ো হওয়া নারীদের অনেকে।

লাইলীকে ‘হত্যার পর আত্মহত্যা বলে চালানের’ চেষ্টা হচ্ছে অভিযোগ করে সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেন তারা।

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িয়ার মেয়ে লাইলী দুই ছেলেমেয়েকে নিয়ে বনশ্রীর পাশে মেরাদিয়া হিন্দুপাড়া বস্তিতে থাকতেন। তার স্বামী নজরুল ইসলাম ভারতের কারাগারে বন্দি বলে স্থানীয়দের ভাষ্য।

তাদের অভিযোগের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, “ময়নাতদন্তের আগে কিছু বলা যাবে না। তবে পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।”

খিলগাঁও জোনের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার নাদিয়া জুঁই রাত ১০টার দিকে বলেন, সন্ধ্যার পরও কিছু উত্তেজিত জনতা বিভিন্ন অলিগলি থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছুড়েছে। পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে সরিয়ে দিয়েছে।

“পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে। আর কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে, সেজন্য পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।” বিডি নিউজ

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন