শিরোনাম :

আজ পর্দা উঠল ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার


সোমবার, ১ জানুয়ারি ২০১৮, ০২:২০ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

আজ পর্দা উঠল ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার

ডেস্ক প্রতিবেদন: বছরের শুরুতে বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রফতানি পণ্যের মান বাড়াতে এবং নতুন নতুন বাজার সৃষ্টি করতে ব্যাসায়ীদের প্রতি অাহ্বান জানিয়েছেন।

সোমবার সকালে রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে ২৩তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাণিজ্য মেলা ক্রেতা বিক্রেতাদের মধ্যে সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়। ক্রেতাদের চাহিদা মোতারবক বিক্রেতারাও সৃষ্টি করতে পারে নতুন নতুন পণ্য।

তিনি বলেন, অামরা দেশ গড়তে এসেছি।নিজেদের ভাগ্য গড়তে নয়। বিনিয়োগকারীরা যেন সব সুযোগ সুবিধা পায় তার ব্যবস্থা অামরা করে দিয়েছি।শিল্প এবং কৃষি দুটোতেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশকে অামরা এমনভাবে গড়ে তুলতে চাই যাতে দেশের প্রতিটি নাগরিক গর্বের সঙ্গে চলতে পারে।বিশ্ব দরবারে মাথা উচু করে দাড়াতে পারে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী ওষুধ শিল্পকে প্রডাক্ট অব দ্যা ইয়ার ঘোষণা করেন।এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরঅান, গীতা, ত্রিপেটক ও বাইবেল থেকে পাঠ করা হয়।এর পর ব্যাবসা বাণিজ্য ও সরকারের উন্নয়নের উপর তথ্যচিত্র "উন্নয়নের অগ্রযাত্রা" প্রদর্শন করা হয়।

মাসব্যাপী এ মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকবে। প্রাপ্তবয়স্করা ৩০ টাকায় এবং শিশু ও কিশোররা ২০ টাকায় টিকিট কিনে মেলায় ঢুকতে পারবেন।গত কয়েক বছরের মতো এবারও ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার মাঠ ইজারা পেয়েছে মির ব্রাদার্স। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) যৌথভাবে এ মেলার আয়োজন করেছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল অাহমেদ ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত্র স্থায়ী কমিটির সভাপতি তাজুল ইসলাম চৌধুরী এমপি। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব শুভাশীষ ঘোষ ও এফবিসিসিঅাই এর সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বক্তব্য রাখেন।

অান্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বাংলাদেশ ছাড়াও এবারের মেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির ৫৮৯টি প্যাভিলিয়ন ও স্টল রয়েছে। এর মধ্যে ১১২টি বড় ও ৭৭টি মিনি প্যাভিলিয়ন। থাইল্যান্ড, ইরান, তুরস্ক, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, নেপাল, চীন, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, পাকিস্তান, হংকং, সিঙ্গাপুর, মরিশাস এবং দক্ষিণ কোরিয়ার ৪৩টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিচ্ছে এবারের মেলায়।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এই অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান বিজয় ভট্টাচার্য। মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা,ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও রপ্তানিকারক এবং মেলায় অংশগ্রহণকারী দেশি-বিদেশি প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানে।

বাণিজ্য মেলার এবারের প্রধান গেট তৈরি হয়েছে পদ্মা সেতুর স্প্যানের (ইস্পাতের কাঠামো) আদলে। গত বছর মূল ফটক নির্মাণ হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলের আদলে। মূল ফটকের পাশাপাশি এবার চমক থাকছে মেলার ভেতরেও। মূল ফটক পেরিয়ে সামনেই দেখা যাবে ডিজিটাল স্ক্রিন। ওই স্ক্রিন থেকে এক পলকেই দেখে নেয়া যাবে পুরো মেলা।আজ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার পর্দা উঠালেন প্রধানমন্ত্রী

বাণিজ্য মেলায় মূল ফটক দিয়ে প্রবেশ করলেই চোখে পড়বে দৃষ্টিনন্দন বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন। অন্যবারের তুলনায় এবার প্যাভিলিয়নটি একটু বেশি দৃষ্টিনন্দন করে সাজানো হয়েছে। প্রবেশ ও বের হওয়ার জন্য থাকছে আলাদা পথ।

ভিআইপি গেট দিয়ে প্রবেশ করলেই হাতের ডানে দেখা যাবে মেলা মাঠের ইজারাদার প্রতিষ্ঠানের কক্ষ। একই স্থানে রয়েছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো কর্মকর্তা ও মেলার সদস্য সচিবের কক্ষ। এছাড়া মেলার মাঝ বরাবরও রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির অপর একটি কক্ষ। যেখান থেকে দর্শনার্থীরা মেলা-সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করতে পারবেন।

মেলায় আগত দর্শনার্থীদের নিরাপত্তায় থাকছে সিসি ক্যামেরা। পাশাপাশি থাকছে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আনসার, পুলিশ, বিজিবি-র্যাবের পাশাপাশি কর্মরত থাকবেন সাদা পোশাকের গোয়েন্দারা।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন