শিরোনাম :

'ব্যাপক হারে খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি কমেছে'


বৃহস্পতিবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৭:১০ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

'ব্যাপক হারে খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি কমেছে'

ঢাকা: ঈদ-উল-আযহাকে কেন্দ্র করে মসলাসহ কিছু পণ্যের দাম বাড়লেও সরকারি হিসাবে চলতি বছরের আগস্ট মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতি আগের মাসের চেয়ে কমেছে। এ মাসে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক ৪৮ শতাংশ। জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৫১ শতাংশ। গত বছরের আগস্টে সার্বিক মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৮৯ শতাংশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বৃহস্পতিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে মূল্যস্ম্ফীতির এ পরিসংখ্যান প্রকাশ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বিবিএসের তথ্য অনুযায়ী, খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি কমেছে ব্যাপক হারে। আগস্টে খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক ৯৭ শতাংশ, যা জুলাইয়ে ছিল ৬ দশমিক ১৮ শতাংশ। গত বছরের আগস্টে খাদ্যে মূল্যস্ফীতি ছিল ৭ দশমিক ৩২ শতাংশ।

আগস্টে খাদ্য বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে। খাদ্য বহির্ভূত খাতে এ সময় মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ, যা আগের মাসে ছিল ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ। গত বছরের আগস্টে খাদ্য বহির্ভূত খাতে মূল্যস্ফীতি ছিল ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে পণ্যের দাম খুব একটা বাড়েনি। বাজার নিয়ন্ত্রণেই ছিল। চাহিদা ও যোগানে বড় কোনো অসামঞ্জস্য ছিল না। প্রয়োজনীয় পণ্য অনেক আগেই আমদানি করে রাখা হয়েছিল। ফলে সার্বিক মূল্যস্ফীতি খুব একটা বাড়েনি।

বিবিএসের তথ্য অনুযায়ী, আগস্টে গ্রামে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ। আর শহর এলাকায় হয়েছে ৬ দশমিক ২৮ শতাংশ। গ্রাম ও শহর এলাকায় জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতি ছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ এবং ৬ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত ১২ মাসে গড়ে ৫ দশমিক ৭৪ শতাংশ মূল্যস্ফীতি হয়েছে। আগের বছরের একই সময়ে গড় মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ। এ হিসাবে গড় মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন