শিরোনাম :

১০ টাকায় চাল বিক্রি প্রকল্প সুষ্ঠু হোক


শনিবার, ২২ অক্টোবর ২০১৬, ০৫:০৭ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

১০ টাকায় চাল বিক্রি প্রকল্প সুষ্ঠু হোক

এ বছরে প্রথমবারের মতো শুরু হয়েছে হতদরিদ্র মানুষের মধ্যে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি। সরকারী এই কর্মসূচীর অধীনে বছরের সেপ্টেম্বর, অক্টোবর, নভেম্বর এবং এপ্রিল, মে --এই পাঁচ মাস কার্যক্রম চলবে। দেশের প্রান্তিক এলাকার হতদরিদ্র জনগণের মধ্যে চাল বিক্রির এই প্রক্রিয়াকে আমরা সাধুবাদ জানাই।
বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। এবছর থেকে নিজেদের প্রয়োজন মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করার মতো যোগ্যতা বাংলাদেশ অর্জন করেছে --যা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক একটি দিক। নিশ্চিত করেই বলা যায়, ভাত এবং ভোটের রাজনীতিতে শেখ হাসিনা সর্বপ্রথম এবং এখন পর্যন্ত সর্বশেষ রাষ্ট্রনায়ক, যিনি কিনা মানুষের প্রধানতম মৌলিক চাহিদা 'খাদ্য'কে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নিরন্নমুক্ত বাংলাদেশ গড়ায় দৃঢ় ভিত্তি স্থাপন করেছেন।
কিন্তু প্রকল্প শুরুর পর থেকেই গণমাধ্যমে যে ভয়াবহ চিত্র উঠে এসেছে তাতে আমরা শঙ্কিত। সরকারের এই মহতী উদ্যোগ কতিপয় অসাধু রাজনীতিকের কারণে একেবারে ভেস্তে যেতে বসেছে। ডিলারশিপ, কার্ড বণ্টন সহ সবক্ষেত্রে সীমাহীন দুর্নীতির চিত্র দেখে জনমনে প্রশ্ন জেগেছে-- ক’জন প্রকৃত দরিদ্র ১০ টাকা দরে চাল কিনতে পারছে? প্রান্তিক পর্যায়ে যাদের এই প্রক্রিয়ায় বিশাল ভূমিকা রাখার কথা, তারা দালাল আর লুটেরার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সংসদ সদস্যরাও বিষয়টিকে এড়িয়ে যাচ্ছেন বা প্রশ্রয় দিচ্ছেন।
এখন কথা হলো, রাজনীতিকেরা অবশ্যই দেশ এবং দেশের মানুষের প্রতি দায়বদ্ধ। সেই অঙ্গীকার নিয়েই তারা স্ব স্ব এলাকা তথা দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। তারা কি নির্মোহ আন্তরিকতার সাথে জনগণের মধ্যে এই বিলিবণ্টনে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারেন না? তারা কী বুঝতে পারছেন না, এমন জনকল্যাণমূলক কাজে আন্তরিকভাবে সম্পৃক্ত হয়ে তারা মানুষের কাছে নিজেদেরকে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে পারেন যাতে অতীত কালিমা কিছুটা হলেও ম্লান হবে? এই প্রক্রিয়ায় প্রান্তিক মানুষ যেমন লাভবান হবে, তেমনি রাজনৈতিকভাবেও তারাও জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারেন।
তাই আমরা আশা করবো, হতদরিদ্রদের মাঝে ১০ টাকা দরে চাল বিক্রির এই অভূতপূর্ব প্রক্রিয়া যেন কতিপয় সুবিধাভোগীর কারণে ব্যাহত না হয় সেই লক্ষ্যে সবাই ঐকান্তিকভাবে কাজ করবেন। পাশাপাশি যারা এই অসাধুতায় জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করাও জরুরী, যাতে ভবিষ্যতে এমন কার্যক্রম আর প্রশ্নবিদ্ধ না হয়। দেশের মানুষকে পেট ভরে ভাত খাওয়ানোর স্বপ্ন বাস্তবায়নের যে প্রক্রিয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রহণ করেছেন তাকে সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে নেয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্র, দল এবং সাধারণ মানুষের। প্রকৃত হতদরিদ্র জনগোষ্ঠী যাতে এই কর্মসূচির সুফল পেতে পারে, তা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের কঠোর দৃষ্টি থাকা প্রয়োজন।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন