শিরোনাম :

শিক্ষার্থীকে হাতকড়া পরিয়ে চিকিৎসা, ওসিকে তলব


সোমবার, ২৯ মে ২০১৭, ০৩:০৬ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

শিক্ষার্থীকে হাতকড়া পরিয়ে চিকিৎসা, ওসিকে তলব

ডেস্ক প্রতিবেদন: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আহত এক শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাতকড়া পরিয়ে রাখার কারণ ব্যাখ্যা করতে আশুলিয়া থানার ওসি ​মহসিনুল কাদিরকে তলব করেছে হাইকোর্ট। সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ-ভাংচুরের ঘটনায় করা এক মামলায় পুলিশ ওই শিক্ষার্থীকে আটক করেছিল।

আগামী ৩১ মে বুধবার ওসি ​মহসিনুলকে সশরীরে হাজির হয়ে কারণ ব্যাখা করার জন্য বলা হয়েছে।

হাসপাতালের বিছানায় হাতকড়া পরা অবস্থায় নাজমুল হোসাইন নামের ওই শিক্ষার্থীর ছবি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে অনেকে ক্ষোভ জানান। এরপর বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ ২৯ মে সোমবার স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের নাজমুল হাসান রানা এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের আরাফাত ২৬ মে শুক্রবার ভোরে সাভারের সিঅ্যান্ডবি এলাকায় বাসের ধাক্কায় নিহত হন। এরপর পরপর দুই দিন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় তাদের সহপাঠীরা।
 
২৭ মে শনিবার বিকালে পুলিশের হস্তক্ষেপে আন্দোলনকারীরা রাস্তা ছেড়ে দিলেও পরে উপাচার্যের বাসভবনের তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়ে এবং সেখানে ভাংচুর চালায়।
এরপর উপাচার্য সিন্ডিকেট সভা করে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করেন এবং শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেন। সিন্ডিকেটের সভা শেষে গভীর রাতে পুলিশ উপাচার্যের বাসভবনের ভেতরে থাকা ১০ ছাত্রীসহ আন্দোলনকারী ৪২ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়।
 
নাজমুল হোসাইন নামের ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের ৪২তম ব্যাচের ছাত্র। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক জোটের ও জাহাঙ্গীরনগর থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক।
 
আন্দোলনের মধ্যে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনের সময় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নেওয়া হয়। পরে আশুলিয়া থানা পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম তাকে সেখান থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে এনাম মেডিকেলে নিয়ে যায়। সেখানে গভীর রাতে তাকে হাতকড়া পরানো হয় বলে সহপাঠিরা অভিযোগ করেছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন