শিরোনাম :

কুবিতে কাল যাচ্ছেন পরিকল্পনামন্ত্রী; শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা


শনিবার, ৩১ মার্চ ২০১৮, ০৭:০৪ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

কুবিতে কাল যাচ্ছেন পরিকল্পনামন্ত্রী; শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) এফসিএ, এমপি আসছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি)।

রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের নতুন শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি উপস্থিত থাকবেন বলে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার (চলতি দায়িত্ব) ড. মো: আবু তাহের। পরিকল্পনামন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে তাই বিশ্ববিদ্যালয় অভ্যন্তরে চলছে জমকালো সাজসজ্জার আয়োজন। 

রেজিস্ট্রার জানান, রবিবার (১ এপ্রিল) সকাল ১১টায় নবীনবরণ অনুষ্ঠান শুরু হবে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে। উপাচার্য প্রফেসর ড. এমরান কবির চৌধুরী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পরিকল্পনামন্ত্রী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীর। এছাড়াও শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকল সদস্য উপস্থিত থাকবেন অনুষ্ঠানে।


এদিকে পরিকল্পনামন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে উচ্ছ্বাস ও আশার সঞ্চার হয়েছে। শিক্ষার্থীদের ভাষ্যমতে, ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠা পাওয়া মাত্র ৫০ একরের ক্ষুদ্র এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের আমেজ’ নেই বললেই চলে! দেশের মধ্য-পূর্বাঞ্চলের উচ্চশিক্ষার একমাত্র এই বিদ্যাপীঠটিতে শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় শিক্ষাসামগ্রীর অভাবের অন্ত নেই। শ্রেণিকক্ষ সংকট, বাস সংকট, ভূমি সংকট, কেন্দ্রীয় মিলনায়তনের অনুপস্থিতি, আলাদা লাইব্রেরির অভাব, পর্যাপ্ত আবাসনব্যবস্থার সংকটসহ খেলার মাঠ, জিমনেসিয়াম, ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক- এসবের কোনোটিরই যথাযথ হদিস মেলে না ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা এবং চাওয়া মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রীর মাধ্যমে সরকার এসব বিষয়ে সুদৃষ্টি দিয়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে বড় আকারের আর্থিক অনুদান প্রদান করবেন।


ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থী নাদিয়াতুল জান্নাত বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় মানে বিশ্বমানের জ্ঞানচর্চার জায়গা। কিন্তু আমরা কুবিতে এসে বিশ্বমানের কোনো ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছি না বলে আমরা বিশ্বমানের জ্ঞানচর্চা থেকে পিছিয়ে আছি। মাননীয় মন্ত্রীর মাধ্যমে সরকার যদি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নতি সাধনে সুদৃষ্টি দেন তবেই আমরা উপকৃত হবো।’

বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী নাসির খান বলেন, ‘প্রতিষ্ঠার ১২ বছর পেরিয়ে গেলেও বিশ^বিদ্যালয় সেই ৫০ একরেই আটকে আছে। তাই ভূমি অধিগ্রহণ করা খুব জরুরি। একইসাথে অবকাঠামোগত উন্নয়ন না হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় এখনো পরিণত রূপ পায়নি। আশা করি মাননীয় মন্ত্রী এসব বিষয়ে সুনজর দিয়ে কুবিতে বড় ধরনের প্রকল্প অনুমোদন দিবেন।’

শিক্ষার্থীদের সাথে একমত পোষণ করে নতুন যোগদান করা উপাচার্য প্রফেসর ড. এমরান কবির চৌধুরী জানান, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক সীমাবদ্ধতা রয়েছে। আমরা সেগুলো মাননীয় মন্ত্রীর নিকট উপস্থাপন করবো। সেই লক্ষ্যেই তাঁকে কুবিতে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আশা করছি তিনি আমাদের সকল ন্যায্য চাওয়া পূর্ণ করবেন।’

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন