শিরোনাম :

১২০০ শিক্ষক নিয়োগ সুপারিশের সময় প্রকাশ!


সোমবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ১০:৩৯ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

১২০০ শিক্ষক নিয়োগ সুপারিশের সময় প্রকাশ!

ঢাকা: আগামী দু-একদিনের মধ্যে ছয়শ’ চারটি স্কুল ও মাদরাসায় এক হাজার ১৯৯টি শিক্ষক পদে প্রার্থীদের নিয়োগ সুপারিশ করা হবে। এসব পদে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ প্রায় শেষের দিকে। এসব পদে নিয়োগে ১৩ হাজার ২৭৬টি আবেদন জমা পড়েছে।

আরো খবর
শিক্ষার্থীদের শিক্ষকের গালি দেয়া কি জায়েজ?
শিক্ষকদের কঠোর নিষেধাজ্ঞা মাউশির
উত্তীর্ণ ৮০০ প্রাথমিক শিক্ষকের নিয়োগ স্থগিত
রোববার এনটিআরসিএর একাধিক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
এনটিআরসিএর পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে কারিগরি সহায়তা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের টেলিটকের সাথে আলোচনা হয়েছে। দু-একদিনের মধ্যে এসব পদে প্রার্থী সুপারিশ করা হবে।
এর আগে গত ৭ জানুয়ারি ছয়শ’ চারটি স্কুল ও মাদরাসায় এক হাজার ১৯৯টি শিক্ষক পদে নিয়োগে বিশেষ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। গত ৮ জানুয়ারি থেকে এসব পদে আবেদন গ্রহণ শুরু হয়। ২২ জানুয়ারির পর্যন্ত চলে আবেদন গ্রহণ।
জানা গেছে, সুপারিশপ্রাপ্ত প্রার্থীদেরে এসএসএম করে জানিয়ে দেয়া হবে। প্রার্থীরা এনটিআরসিএর নির্ধারিত ওয়েবসাইট থেকে সুপারিশপত্র ডাউনলোড করে নিজ নিজ পদে যোগদান করবেন।
জানা গেছে, ১০টি বিষয়ে ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনে উত্তীর্ণরা এসব পদে নিয়োগের আবেদন করেছেন। ফুড প্রসেসিং, সিভিল কনস্ট্রাকশন, জেনারেল ইলেকট্রিক্যাল ওয়ার্কস, জেনারেল ইলেক্ট্রনিক্স ওয়ার্কস, ড্রেস মেকিং, ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি, জেনারেল মেকানিক্স, রেফ্রিজারেশন অ্যান্ড এয়ার কন্ডিশনিং, প্লাম্বিং অ্যান্ড পাইপ ফিটিং এবং ওয়েল্ডিং অ্যান্ড ফ্যাব্রিকেশন বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগের সুপারিশ করা হবে।
জানা গেছে, সাধারণ ধারার স্কুলগুলোতেও চালু হচ্ছে বৃত্তিমূলক বা ভোকেশনাল কোর্স। সাধারণ শিক্ষায় বৃত্তিমূলক কোর্স চালুর অংশ হিসেবে এসব শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। জনবল কাঠামো সংশোধন করে এসব পদের শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করা হবে। ইতোমধ্যে এসব পদে নিয়োগে সম্মতি জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। প্রাথমিকভাবে সেসিপ প্রকল্পের আওতায় ৬০৪টি স্কুল ও মাদরাসায় ১ হাজার ১৯৯টি শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া হবে।
প্রাথমিকভাবে সেসিপ প্রকল্পের আওতায় ছয় শতাধিক স্কুলে ভোকেশনাল কোর্স চালু করা হবে। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানগুলোর জনবল কাঠামো সংশোধন করে নতুন ৪টি পদ অর্ন্তভুক্ত করা হবে। আর জনবল কাঠামো সংশোধন করে এ স্কুলগুলোতে ২জন ট্রেড ইন্সট্রাক্টর ও ২জন ল্যাব অ্যাসিসটেন্ট নিয়োগে গত ৩ নভেম্বর সম্মতি জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সে প্রেক্ষিতে, গত ১ ডিসেম্বর স্কুলগুলোতে ২জন ট্রেড ইন্সট্রাক্টর ও ২জন ল্যাব অ্যাসিসটেন্ট নিয়োগে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
এছাড়া সাধারণ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদেরও পড়তে হবে ভোকেশনাল কোর্স। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান কারিগরি শিক্ষা বোর্ড পরিচালিত ট্রেডগুলোর মধ্যে পছন্দ অনুসারে দুটি ট্রেড চালু করতে হবে। বৃত্তিমূলক শিক্ষায় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করতে, কর্মমূখী শিক্ষাকে আরও জনপ্রিয় করতে এবং বেকারত্ব কমাতে এ উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ২০২১ খ্রিষ্টাব্দ থেকে প্রতিটি সাধারণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দুটি করে ভোকেশনাল ট্রেড অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে বলে সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আর ইতোমধ্যে ভোকেশনাল কোর্স চালুর কাজ শুরু করেছে সরকার।

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন