শিরোনাম :

নিলামে মেহেজাবিনের শাড়ির দাম উঠল ৪০ হাজার টাকা !


শুক্রবার, ১৬ জুন ২০১৭, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

নিলামে মেহেজাবিনের শাড়ির দাম উঠল ৪০ হাজার টাকা !

বিনোদন ডেস্ক: জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী মেহজাবিন চৌধুরী। অভিনয় করছেন নিয়মিত। এই ঈদেও প্রচুর নাটকে অভিনয় করছেন। সেই অভিনয়ের ফাঁকে এই ঈদে ব্যতিক্রম একটি কাজ শুরু করছেন। আর তা হলো এই ঈদে ‘টপিক থ্রি সিক্সটি ডিগ্রি ’ থেকে পথশিশুদের নিয়ে আয়োজিত এক ফেস্টিভ্যালে অংশ নিচ্ছেন তিনি। এই বিষয়ে ফেসবুকে তিনি এক দীর্ঘ স্ট্যাটাস দিয়েছেন। পথ শিশুদের সাহায্য করতে তিনি গতকাল সকাল ১১ টা বেজে ২৯ মিনিটে ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে তার একটি শাড়ি নিলামে ওঠান। শাড়িটির আস্কিং প্রাইজ ঠিক করা হয়েছিল ২ হাজার টাকা। মুহূর্তেই তার ফেসবুক স্ট্যাটাসের কমেন্টে তার ফ্যান ফলোয়ার্স, শুভাকাঙ্ক্ষী ও শাড়িটি কিনতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা কমেন্ট করতে থাকেন। সেখানে- ‘সোবান ইসলাম সাম’ নামক একজন জানতে চান- দাম কোথায় হাঁকতে হবে? সোবানের প্রশ্নের উত্তরে মেহজাবীন সবাইকে কমেন্টেই বিড হাঁকতে আহ্বান করেন। শুরু হয় দাম হাঁকার পালা।

গতকাল নিলাম কার্যক্রমের প্রথম দিকে ‘হাফিজুর আর রহিম’ নামক এক ব্যক্তি সকাল ১১ টা ৪৩ মিনিটে ২ হাজার টাকায় শাড়িটি কিনতে চান। তার আশার গুড়ে বালি ঢেলে দিয়ে মাত্র ৮ মিনিটের মাথায় ‘মাহাবুবুর রশিদ বান্নাহ’ নামক একজন দাম হাঁকেন ৩ হাজার টাকা। মাত্র তিন মিনিটের মাথায় বেলা ১১ টা ৫৪ মিনিটে বান্নাহকে হটিয়ে ‘মোহাম্মদ দবির আলী’ দাম হাঁকেন ৩ হাজার ২ শ টাকা। কিন্তু দবির আলীর ঐ বর্ধিত ২ শ টাকাও ধোপে টেকেনি। ১১ টা ৫৪ মিনিটে ৪ হাজার টাকা দাম তোলেন ‘তাওসিফ মাহবুব’ নামের একজন। এক মিনিটের মাথায় ‘সামিউল হক শমিক’ আর মাত্র ১০০ টাকা বাড়িয়ে ৪১০০ টাকায় শাড়িটি কিনতে চান। সেটি দেখে এর আগে ৩ হাজার টাকা বিড করা ‘মাহাবুবুর রশিদ বান্নাহ’ দ্বিতীয়বারের মতো দাম হাঁকেন ৪ হাজার ৭ শ টাকা। তখন বাজে বেলা ১১ টা ৫৭ মিনিট। ঠিক এই সময়েই হুট করে ‘মুনতাহা লামিয়া’ নামক একজন একধাপে উঠে যান ১০ হাজারে! কিন্তু তার ১০ হাজার টাকাও তাঁকে মেহজাবিনের উক্ত শাড়ির মালিক বনে যেতে দেয়নি। কেন না, মাত্র এক মিনিট অতিবাহিত হতে না হতেই করিম বেঞ্জেমা ১৫ হাজার টাকা বিড করেন। বেলা ১২ টা বাজার এক মিনিট আগে নিলা কার্যক্রমে অংশ নেন অসীম রায়। তিনি হাঁকেন ১৯ হাজার টাকা। সেটি সহ্য হয়নি করিম বেঞ্জেমার। ৩ হাজার টাকা বাড়িয়ে তিনি বিড করেন ২২ হাজার টাকা! শেষ রক্ষা হল না করিম বেঞ্জেমার। কেন না একই সময়ে ২৪ হাজার টাকা বিড করেন ‘সাইফুল করিম’ নামক একজন। করিম বেঞ্জেমাও দমে হাওয়ার লোক নন, তিনি ১২ টা ১ মিনিটের সময় পুনরায় দাম হাঁকেন ২৮ হাজার টাকা! এরপর থেকে দীর্ঘক্ষণ আর কেউ করিম বেঞ্জেমাকে হটিয়ে দাম হাঁকেননি। কিন্তু বেঞ্জেমা পিছিয়ে পড়েন বেলা ১ টা বেজে ১৮ মিনিটে জোয়ার্দার কাফির কাছে। জোয়ার্দার কাফি শাড়িটির দাম ওঠান ৩২ হাজার টাকায়! দুপুর ১ টা বেজে ৩৫ মিনিটে জোয়ার্দার কাফিকে টপকে যান হৃদয় আহমেদ, তিনি দাম হাঁকেন ৩৫ হাজার টাকা। এর অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই ‘নাহিদ এইচ সম্রাট’ নামক একব্যক্তি বেলা ১ টা বেজে ৫৬ মিনিটে দাম হাঁকেন ৪০ হাজার টাকা। একই সময়ে ‘দিদারুল ইসলাম দিদো’ও ৪০ হাজার টাকা দাম হাঁকেন। বর্তমানে এটিই মেহজাবিনের শাড়ির সর্বোচ্চ বিড।

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন