শিরোনাম :

উচ্ছ্বসিত কংগ্রেস কান্ডারি


বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

উচ্ছ্বসিত কংগ্রেস কান্ডারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে পাঁচ রাজ্যের ভোটের ফল কংগ্রেসের কান্ডারি রাহুল গান্ধীর শরীরী ভাষাই বদলে দিয়েছে। একমাত্র তেলেঙ্গানা নিয়ে কিছুটা নিরাশ শোনালেও ভোটের সার্বিক ফলে উচ্ছ্বসিত কংগ্রেস সভাপতি। দিল্লিতে এআইসিসি দফতের সাংবাদিক বৈঠকে অনেক ঝরঝরে লাগল সনিয়া পুত্রকে। ভোটের সার্বিক ফল যে তাঁকে আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছে, তা রাহুলের বক্তব্যেই স্পষ্ট। এই জয়কে মোদীবিরোধী জনমত উল্লেখ করে, দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, এবার হারিয়েছি,২০১৯-এও বিজেপিকে হারাব। এই জয়ের কৃতিত্ব তিনি বিরোধী মহাজোটের সঙ্গেই ভাগ করে নিয়েছেন। 'বিরোধীজোট শক্তিশালী হচ্ছে।'

সামনের লোকসভা নির্বাচনের আগে জনগণমনের গতিপ্রকৃতির আঁচ পেতে এটা ছিল কংগ্রেসের সঙ্গে বিজেপি'র কাছেও অ্যাসিড টেস্ট। ভোটে বিজেপির যে ভরাডুবি হতে চলেছে, সে ইঙ্গিত বুথফেরত সমীক্ষাতেও ছিল। রাজস্থান ও ছত্তীশগড়ে জোর ধাক্কা খেয়েছে বিজেপি। তেলেঙ্গানাতেও তলিয়ে গিয়েছে। তবে, রাহুলের কথায়, তেলেঙ্গানায় আরও ভালো ফলের আশা করেছিলাম।

মঙ্গলবার এমন একটা মঞ্চে ফের একবার মোদী বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন রাহুল। কংগ্রেস সভাপতির কথায়, নরেন্দ্র মোদীকে এতদিন সুযোগ দিয়েছেন মানুষ। কিন্তু মোদী কিছু করেননি। ৫ বছরে শুধু স্বপ্নই দেখিয়েছেন। যে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তার কিছুই করেননি মোদী।

প্রধানমন্ত্রীকে দুর্নীতিগ্রস্ত বলতেও দ্বিধা করেননি কংগ্রেসের কান্ডারি। দুর্নীতি ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী কেন চুপ, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তাঁর কথায়, নোটবাতিল সবচেয়ে বড় কেলেঙ্কারি। বিপর্যয়ও। এর ফলে সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সাধারণ মানুষ। দেশজুড়ে অর্থনৈতিক অরাজকতা চলছে। রাফাল নিয়েও খোঁচা দেন মোদীকে। রাহুলের কথায়, রাফালে যে দুর্নীতি হয়েছে, তা প্রকাশ্যে আসবেই।

প্রধানমন্ত্রীকে 'লক্ষ্যভ্রষ্ট' নেতা হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, ২০১৯ মোদীর কাছে খুব কঠিন লড়াই। এ বার বদলের সময় এসে গিয়েছে। আমরা আজ ওদের হারিয়েছি। ২০১৯-এও হারাব। তবে, নরেন্দ্র মোদী যে ভাবে কংগ্রেসকে মুছে দেওয়ার কথা প্রকাশ্যে বলে আসছেন, রাহুল কিন্তু সে পথে হাঁটেননি। 'বিজেপির নীতির বিরুদ্ধে আমরা লড়াই চালিয়ে যাব। আমরা বিজেপিকে আবার হারাব। কিন্তু বিজেপি-মুক্ত ভারত চাই না।

মোদী যে কৃষক-দরদি নন, তার উল্লেখ করে রাহুল বলেন, নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিমতোই মধ্যপ্রদেশে কৃষক ঋণ মুকুব করা হবে। তাঁর কথায়, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, ছত্তীশগড়ে অনেক কিছু করার আছে। মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচন নিয়ে যে কোনও জটিলতা হবে না, তা-ও স্পষ্ট করে দেন।

এত কিছুর মধ্যেও ইভিএম নিয়ে কিন্তু নিজের অবস্থানে অনড় রাহুল গান্ধী। 'জিতলেও ইভিএম নিয়ে অবস্থান বদল করছি না। সব দেশেই ইভিএমে সমস্যা রয়েছে। যে কারণে আমেরিকার মতো দেশেও ব্যালটে ভোট হয়।'

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন