শিরোনাম :

ঝিনাইদহে ৮ মাসে ২৭টি গরু চুরি


বুধবার, ৯ আগস্ট ২০১৭, ১২:২৯ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

ঝিনাইদহে ৮ মাসে ২৭টি গরু চুরি

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহ জেলা সদরের পশ্চিমের কয়েকটি গ্রামে ডাকাতি ও চুরি ঘটনা গ্রামবাসি শংকিত হয়ে পড়েছে।প্রতি মাসেই গরু চুরির ঘটনায় রাত জেগে গোয়াল ঘর পাহারা দিচ্ছে গৃহস্থ।তারপরও চুরি ঠেকানো যাচ্ছে না।

ইতিমধ্যে চুরি ডাকাতি রোধে পুলিশের সহায়তায় পাহারা বসানো হয়েছে।বাজারগোপালপুর পুলিশ ফাড়ির সদস্যরা নিয়মিত টহলও দিচ্ছেন।গ্রামবাসিকে তারা আশ্বস্তও করছেন।কিন্তু চুরি ডাকাতির সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতারা করা যাচ্ছে না।এলাকাবাসির অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা যায়,সদর উপজেলার মধুহাটি ইউনিয়নের বেজিমারা, চান্দুয়ালী, বাজারগোপালপুর, জিয়ালা, মহামায়া, কামতা, কুবিরখালী, শংকরপুর, ডহরপুকুর, মির্জাপুর, মধুহাটী, দুর্গাপুর, কোটচাঁদপুরের সারুটিয়া ও রুদ্রপুর গ্রাম থেকে ২৭টি গরু চুরি ও বাড়ি এবং সড়কে একাধিক ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।গ্রামবাসির দেওয়া পরিসংখ্যান মতে গত বছরের ডিসেম্বর থেকে এই আট মাস ধরে এ ভাবে চুরি ডাকাতি হচ্ছে। গ্রামবাসি কোন প্রতিকার পাচ্ছে না।কারা জড়িত তাও সনাক্ত হয়নি। এতে গ্রামের মানুষ হতাশ হচ্ছেন।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, মধুহাটী গ্রামের সরোয়ারের বাড়ি তেকে এক রাতে ৫টি গরু চুরি হয়।এর মধ্যে একটি গাভী গরু গর্ভবতি হওয়ায় মাঠের মধ্যে ছুরি দিয়ে খুচিয়ে খুচিয়ে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে গরুটি মারা যায়।একই গ্রামের আবু তৈয়ব, দেলোয়ার হোসেন ও ফারুকের একটি করে গরু চুরি হয়।বেজিমারা গ্রামের শরিফুল ইমলাম, মধুমিয়া, আতিক, ফজলুর রহমান, জিয়ালা গ্রামের সোহাগ, ডহরপুকুর গ্রামের খোকন, আশিক, কামতা গ্রামের দেলোয়ার, শংকরপুর গ্রামের আলী কদর, মুন্নাফ, মীর্জাপুরের আব্দুর রহিম, আনোয়ার হোসেন, আবু বকর সিদ্দিক, মহামায়া গ্রামের আব্দুল মান্নান, বজলুর রহমান, দুর্গাপুর মাঠপাড়ার মিশন ও আব্দুল আজিজের বাড়ি থেকে সর্বমোট ২৭টি গরু চুরি হয়েছে। সর্বশেষ গত সপ্তায় দুর্গাপুর মাঠপাড়ার রেজাউলের বাড়িতে গরু চুরি করতে ঢুকে চোরেরা পালিয়ে যায়। এ ছাড়া চান্দুয়ালী মাঠপাড়ার আলী আহম্মেদ ও সামছুলের বাড়িতে ও জিয়ালা গ্রামের আব্দুল জলিলের বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে বাজারগোপালপুর জিয়ানগর সড়ক, বাজারগোপালপুর ডাকবাংলা সড়ক ও সর্বশেষ বাজারগোপালপুর চান্দুয়ালি সড়কের নিমতলা সড়কে ডাকাতি হয়েছে। কোটচাঁদপুরের সারুটিয়া ও রুদ্রপুর গ্রামের এক বাড়িতেও ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। একের পর এক চুরি ডাকাতির ঘটনায় এলাকার মানুষ আতংক গ্রস্থ হয়ে পড়েছে। চিহ্নিত চক্রটি ধরাছোয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে। গ্রামবাসি অসহায় হয়ে জেলা পুলিশের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহের বাজারগোপালপুর পুলিশে ক্যাম্পের তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সনজয় মন্ডল বলেন, এলাকায় একটি গ্রুপ নতুন করে অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তিনি এলাকায় চুরি ডাকাতির ঘটনায় বলেন, আমরা ঈদ সামনে রেখে গ্রাম পাহারা দিতে বলছি।চুরির ঘটনায় পুলিশ দুই চোরকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেছে।তিনি হতাশা প্রকাশ করে বলেন, সরষের মধ্যে ভুত থাকলে এখানে ক্যাম্প কেন থানা বসালেও কোন কাজ হবে না।তবে এই কথার ব্যাখা দিতে তিনি অপরাগত প্রকাশ করেন।

এটি

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন