শিরোনাম :

মুখের খুঁত ঢাকতে ব্লাশঅন


বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৭, ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

মুখের খুঁত ঢাকতে ব্লাশঅন

ডেস্ক প্রতিবেদন: চটজলদি বিবর্ণ ত্বকে প্রাণের সঞ্চার করতে যে জিনিসটি কাজে দেয় তা হলো ব্লাশ, ব্লাশঅন অথবা ব্লাশার।হাল ফ্যাশনের মেকআপে ব্লাশঅন বড় একটি অংশ দখল করে রাখলেও এর শুরুটা কিন্তু প্রাচীন মিশরীয়দের হাত ধরে।ধবধবে সাদা মুখ, চোখে ভারী কাজল আর টকটকে লাল রঙে রাঙানো গাল এই ছিল তখনকার বিউটি ট্রেন্ড।

মুখের গড়ন ও ব্রাশের ঠিকঠাক ধারণা না থাকলে ব্লাশার লাগানো নিখুঁত হয় না। তবে মুখের খুঁত ঢাকতে তো বটেই এছাড়া ব্লাশারের কিন্তু রয়েছে বহুবিধ ব্যবহার।

কোন ত্বকে কেমন ব্লাশঅন

ব্লাশার ক্রিম ব্লাশ : শুষ্ক ত্বকের জন্য এই ব্লাশার বেস্ট।সন্ধ্যের মেকআপে পাউডার লাগানোর আগে বেসের উপরে লাগান ক্রিম ব্লাশার।আর এর জন্য ব্রাশ নয় আঙুল ব্যবহার করাই ভালো।

পাউডার ব্লাশ: সব ধরনের ত্বকের পক্ষে উপযোগী হলেও এটি অয়েলি স্কিনের জন্য পারফেক্ট।ফেস পাউডার লাগানোর পরে লাগান পাউডার ব্লাশ।গালের লালিমার স্থায়িত্ব বাড়াতে ক্রিমের চেয়ে পাউডার বেশি উপযোগী।

টিন্ট ব্লাশ : এই ব্লাশ খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়।তাই এটি খুব দ্রুত লাগাতে হয়। ঠিকমতো লাগালে যতক্ষণ না মুখ ধোয়া হবে ততক্ষণই ব্লাশারের আভা লেগে থাকবে।

জেল বা ফ্লুয়িড ব্লাশ : জেল ব্লাশ মুখে আলাদা উজ্জ্বলতা এনে দেয়।ফাউন্ডেশনের উপর বা কিছু না লাগানো অবস্থায় এই ব্লাশ লাগান।অয়েলি স্কিনে এটা বেশি ভালো কাজ করে।

শিমার : বিকেলের মেকআপের জন্যই মূলত এটি ব্যবহার করা হয়।কপালে, চোখের পাতার উপরের অংশে, চোখের কোণে শিমার লাগাতে পারেন।

ব্রোঞ্জারস : উজ্জ্বল শ্যামবর্ণদের জন্যই এটা বেশি ব্যবহার করা হয়।ট্যান লুক করার জন্য এটার চল আছে। তবে ফর্সাদের জন্য একটু হালকা শেডের ব্রোঞ্জারস বাছাই করতে পারলে ভালো হয়।

কোন মুখে কেমন ব্লাশার: মুখের শেপের সঙ্গে ব্লাশার লাগানোর কায়দা অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত।তাতে ঢাকবে মুখের খুঁত।

ডিম্বাকৃতি মুখ: গালের টোল পড়ার জায়গায় ব্লাশ লাগান।এরপর একটা ফ্লাফি ব্রাশ দিয়ে আস্তে আস্তে উপরের দিকে মিশিয়ে দিন।

গোলাকৃতি মুখ: এ ক্ষেত্রে গাল ভারী হয়। গাল যেন ভরাট না দেখায়, তার জন্য টেপার্ড ব্রাশ ব্যবহার করুন। গালের বাইরের দিক থেকে কান বরাবর ৪৫ ডিগ্রি
কোণে ভার্টিকাল স্ট্রোক দিন।

চতুর্ভুজাকৃতি মুখ: এ ক্ষেত্রে হালকা শেডের ব্লাশ ব্যবহার করা ভালো।ব্রাশ দিয়ে গোল গোল করে স্ট্রোক দিন।এতে চোয়ালের হাড়গুলো স্পষ্ট বোঝা যাবে না।

পানপাতা শেপের মুখ: চিকবোনের বাইরে থেকে ব্রাশটাকে ভেতরের দিকে নিয়ে আসুন।

আয়তাকার মুখ: এ ক্ষেত্রে গালের টোল পড়ার জায়গা থেকে আড়াআড়িভাবে ব্রাশের স্ট্রোকটা দিন।কান পর্যন্ত সেটা লাগান।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন