শিরোনাম :

চুলের সৌন্দর্য বর্ধনে হেয়ার সিরাম


বুধবার, ২০ ডিসেম্বর ২০১৭, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

চুলের সৌন্দর্য বর্ধনে হেয়ার সিরাম

ডেস্ক প্রতিবেদন: হেয়ার সিরাম শব্দটি হয়ত কিছু মানুষের কাছে নতুন কিন্তু এটি trichology এর একটি পুরাতন এবং প্রচলিত শব্দ। হেয়ার সিরাম তরল জাতীয় পদার্থ যা সিলিকন ভিত্তিক উপাদান ,অ্যামিনো অ্যাসিড এবং সিরামাইড দ্বারা তৈরি করা হয়। ঠান্ডা আবহাওয়া, সূর্য, উত্তপ্ত স্টাইলিং সরঞ্জাম এবং চুলে বিভিন্ন রাসায়নিক উপাদান ব্যবহার করার কারণে চুল শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। হেয়ার সিরামে থাকা সিলিকন কন্টেন্ট মাথার ত্বকের উপর মাস্ক হিসাবে কাজ করে এবং চুলের কাঠামোগত পরিবর্তন আনে। এই সিরাম সাধারণত ফ্রিজি এবং কার্লি চুলের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে তবে স্ট্রেইট চুলকেও জটমুক্ত করতে এর জুড়ি নেই। বাজারে বিভিন্ন প্রকারের সিরাম পাওয়া যায় কিন্তু অরগানিক এবং সিলিকন ভিত্তিক চুলের সিরাম তাদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়।

হেয়ার সিরাম ব্যবহারের উপকারিতা:

হেয়ার সিরাম তৈলাক্ত মাথার স্কাল্পকে শুষ্ক রাখে এবং চুলকে খুশকি, ছত্রাকের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে।

হেয়ার সিরাম নিস্তেজ চুলকে চকচকে এবং স্বাস্থ্যকর করে তোলে।চুলে এনে দেয় উজ্জ্বলতা।

আপনার চুলে যদি ঘন ঘন জট লেগে যায় তবে হেয়ার সিরামের ব্যবহার নিমিষেই আপনার সে সমস্যার সমাধান দেবে।

হেয়ার সিরাম চুল শুষ্ক হওয়া থেকে রক্ষা করে।

হেয়ার স্টাইলিং মানে স্ট্রেইটনিং, কারলিং বা ব্লো ড্রাইং এর আগে যদি ব্যবহার করেন, তবে এই সিরাম ওভার হিট থেকে আপনার চুলকে রক্ষা করবে।

নন স্টিকি প্রকৃতির হওয়ার কারণে হেয়ার সিরাম ধূলো এবং সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে চুলকে রক্ষা করে।

কিছু ক্ষেত্রে সিরাম চুলকে অত্যধিক শুষ্ক করে ফেলে যা চুলের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো না। এমনটি হলে অবিলম্বে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

হেয়ার সিরাম ব্যবহারের নিয়ম:

যদিও হেয়ার সিরাম লাগানো একদম সহজ, তবুও হেয়ার সিরাম প্রয়োগ করার একটি কৌশল আছে। হেয়ার সিরাম ব্যবহার করার জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু ধাপ অনুসরণ করতে হবে। প্রথমত, একটি হালকা শ্যাম্পু দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে নিতে হবে। তারপর হাতের তালুতে অল্প পরিমাণে সিরাম নিয়ে তা আলতো ভাবে ভেজা চুলের উপরিভাগে লাগিয়ে দিবেন। চুলের গোড়ায় লাগানোর দরকার নেই। এখন চুল শুকানোর জন্য অপেক্ষা করুন। পরে এটি আর ধুয়ে ফেলারও প্রয়োজন নেই।

কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপসঃ

হেয়ার সিরাম ব্যবহার করার সময় সঠিক খাদ্য গ্রহণ করবেন। এটি সিরাম থেকে ভালো ফলাফল পেতে সাহায্য করে আর আপনিও পেয়ে যাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত চুল।

সিরাম ব্যবহার করার আগে হারবাল জাতীয় শ্যাম্পু যেমন herbal essences, vatika বা আপনার পছন্দ মত শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন। কেননা আপনি যদি রাসায়নিক উপাদানে তৈরি শ্যাম্পু ব্যবহার করেন তবে সিরামে থাকা এবং শ্যাম্পুতে থাকা উপাদান গুলো একে অপরের সাথে বিক্রিয়া করে আপনার চুলের উপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।

মাথার তালুতে কখনও সিরাম লাগাবেন না। আপনার মাথার ত্বক দ্বারা নিঃসৃত প্রাকৃতিক তেল আপনার চুলের গোড়ার যত্ন নেয়। তাই এই প্রাকৃতিক তেলের উপর সিরাম প্রয়োগ করায় আপনার চুল হবে স্ট্রেইট এবং গ্লেজি।

সব সময় ভেজা চুলে সিরাম অ্যাপ্লাই করবেন।এতে সমস্থ চুলে ভালো ভাবে ছড়িয়ে যাবে।

চলুন এবার এক নজরে পরিচিত হয়ে আসা যাক কিছু হেয়ার সিরামের সাথে। এগুলো লোকাল দোকান গুলোতে ৫০০-৮০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। তবে সব সময় চেষ্টা করবেন ভালো মানের দোকান থেকে কেনার জন্য।

Dove Nourishing Oil Care Hair Serum

এই সিরামটি চুলকে তেল চিটচিটে করে না বরং প্রাণহীন চুলকে উজ্জ্বল আর ম্যানেজেবল করে তোলে। হালকা ওজনের এই সিরাম খুব সহজে প্রবেশ করবে আপনার চুলের অভ্যন্তরে।

Garnier Fructis Sleek & Shine Anti-Frizz Serum

এটি আপনার চুলে যেকোনো স্টাইলিং এর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এতে থাকা তেল এবং এপ্রিকট এর নির্যাস আপনার চুলকে হাইড্রেট করবে এবং চুলের ৯৭ ভাগ ফ্রিজিনেস কেটে যাবে।

Livon Hair Serum

এটি চুলকে ম্যানেজেবল এবং কোঁকড়া মুক্ত করে। চুলের ভাঙ্গন অনেকাংশেই কমে যায় সেই সঙ্গে চুল হবে জটমুক্ত। এছাড়াও চুলের অনেক কমন প্রবলেমের সলিউসন দেয় এই সিরাম।

L’Oreal Professional “liss ultime” serum

এই সিরামের সাহায্যে চুলের ফ্রিজিনেসকে বিদায় বলুন। আপনার চুলের পলিশ ফিনিশ সবার নজর কাড়বেই। মসৃণ, সুন্দর চুলের সঙ্গে একটি প্রটেকটিভ আস্তরণ দিয়ে চুলকে কোট করে।

ঘরে তৈরি কফি মধুর হেয়ার সিরামঃ

এই সিরামটি কন্ডিশনারের মত ব্যবহার করা হয়। যা আপনার চুলকে মসৃণ করবে। কফি চুলের গোড়া শক্ত করবে এবং চুলে একটি অতিরিক্ত রঙ যোগ করে আর মধু কমপক্ষে দুই দিনের জন্য আপনার চুলে উজ্জ্বল আভা ছড়াবে। ৪ চা চামচ কফি নিন এর সাথে ২ টেবিল চামচ মধু মিশান, এতে আরও যোগ করুন ৪ টেবিল চামচ পানি। এ গুলো ভালো করে মিশিয়ে একটি পেস্ট বানান। ভেজা অথবা শুকনো চুলে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রাখুন। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন।

পরিবেশ দূষণ, সূর্যের উত্তাপের কারণে চুল নষ্ট হয়। তাই চুলের হারানো দীপ্তি এবং চমক ফিরিয়ে আনার জন্য হেয়ার সিরাম ব্যবহার করা হয়। মূলত, সিলিকন তেল থেকে হেয়ার সিরাম তৈরি হয় তাই এতে কোনো ক্ষতিকারক রাসায়নিক উপাদান থাকে না। প্রত্যেকবার চুল ধোয়ার পর হেয়ার সিরামের প্রয়োগ চুল চকচকে করে তোলে। তবে, রুক্ষ চুল মোলায়েম করার জন্য, নিয়মিত চুল সিরামের পাশাপাশি পুষ্টিকর ডায়েট অনুসরণ এবং ব্যায়াম করা উচিত।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন