শিরোনাম :

কালপুরুষ – সুনীতি দেবনাথ


রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৩:৫২ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

কালপুরুষ – সুনীতি দেবনাথ

কোন্ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়েছ তুমি
হে কালপুরুষ! কালের অতন্দ্র প্রহরী!
সেজেছো কী অদ্ভুত অলৌকিক সাজে,
তোমার ভয়াবহ প্রস্তুতি কাঁপিয়ে দেয়
আমাকে আমার লৌকিক এই জগতকে,
বিড়ম্বিত অস্তিত্ব নিয়ে আমি রুদ্ধশ্বাস!

নাক্ষত্রিক অত্যুজ্জ্বল দ্যুতি তোমার
চোখে
সারাটা অবয়বে কুচি কুচি কদম্বরেনু
নক্ষত্রের দানা সংখ্যাতীত নক্ষত্র সমাবেশে।
নক্ষত্রের ঢাল হাতে নাক্ষত্রিক তরবারি!
অন্ধকারে আলোর দৃষ্টিতে তবু নিরন্তর
মাটির পৃথিবী দেখো বিস্ময়ের দৃষ্টিতে,
যুগের পর যুগ চেয়েই আছো নিষ্পলক।

এই আমার গ্রহকে ঘিরে বহুকাল আগে
মোলায়েম সুস্নিগ্ধ নরম বাতাস চঞ্চল পায়ে
কেমন ঘুরে ঘুরে ঘুঙুরের মত বাজতো,
সফেন তরঙ্গে সমুদ্র খিলখিল হেসে
আকাশ দেখে ঈর্ষাতুর আক্রোশে ফুঁসে
ভীষণ গর্জনে উদ্বেলিত হয়ে উঠতো।

আজ সবই আছে তবু কিছুই তো নেই,
প্রেম ভুলে মানুষ আজ পাল্লা দিয়ে
আদিম পশুত্বের কাছে দাসত্বের এক
অভিনব খতনামা নির্বিচারে দিচ্ছে সঁপে
অরাজকতার এই বিষম কালে একটা
অনিবার্য যুদ্ধ দামামার ক্ষীণ ধ্বনি
ইথারে ইথারে কেবলই ঘুরছে ভীষণ,
এবার একটা যুদ্ধ হবেই হবে নিশ্চিত।

বিষম এই যুদ্ধে হে কালপুরুষ,
নির্ণিত হবেই পৃথিবীর অনাগত দিনের স্বরলিপি
মানুষ বিবেক মনুষ্যত্বে অধিষ্ঠান করবে
নাকি ধ্বংস হবে সব কিছু পুরোনো সব
মূল্যবোধ বোধোদয়ের প্রাথমিক পাঠ,
অতীতের ছায়াচ্ছন্ন ঐতিহ্যের ইতিহাস,
দর্শনের প্রাজ্ঞবাণীর সুমিত উত্তরাধিকার
আরো সবকিছু সঞ্চিত সভ্যতার সম্পদ,
এই যুদ্ধে স্থির হবে মানুষের পৃথিবীর
উত্তরাধিকারের জয়যাত্রা নাকি বিনাশ।

এই ভয়ঙ্কর ক্রান্তিকালে হে কালপুরুষ!
তোমার অক্ষয় আলোর দুর্দম তরবারি
দাও মানুষের হাতে, শীতল চেতনায়
মস্তিষ্কের কোষে জ্যোতিষ্কের কোলাহল,
ঐ উঁচু দেয়ালটা ভেঙ্গে চুরমার করবে
চৈতন্য পথিক জনতা আত্মাকে চিনে,
রক্তে আন্দোলিত হবে জরাজীর্ণ
সংকীর্ণ সংস্কারের সুউচ্চ মিনার ভাঙ্গার
প্রতিজ্ঞা প্রখর আর অবলুণ্ঠিত আত্মার
পুনরুত্থানের আলোকিত অভিনব পথ।
মানুষ আবার মহামানবাত্মার অভিযানে
উড়াবে জয়পতাকা অসীম সূর্যালোকে,
মহাকাশ থেকে চূর্ণ আলোক কণা কণা
অঝোর ধারায় ঝরে প্রাণের মহাপ্লাবণে
মহাকালের অবাধ স্রোতে আলোড়িত
স্পন্দিত হয়ে চল চঞ্চলতায় হাসবেই।
হে কালপুরুষ, সিঁড়ি ভেঙ্গে স্বপ্নের সেই
পুনরুত্থান দ্রোহের কুচকাওয়াজে
ক্ষুদ্রতা পেরিয়ে যুদ্ধ শেষে পৌঁছে যাবে
মানুষের কলোচ্ছ্বাসে মুখরিত সৈকতে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন