শিরোনাম :

দুর্নীতিমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে হবে: দুদক চেয়ারম্যান


বৃহস্পতিবার, ২ জুন ২০১৬, ০৭:৩৩ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

দুর্নীতিমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে হবে: দুদক চেয়ারম্যান

খুলনা প্রতিনিধি: দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, আগামী প্রজন্মের জন্য দুর্নীতিমুক্ত একটি সুখী ও সমৃদ্ধ সমাজ প্রতিষ্ঠায় সকলকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

এ জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন জাতিকে শিক্ষিত ও ছাত্রদের মধ্যে দুর্নীতি বিরোধী মনোভাব তৈরি করা।

বৃহস্পতিবার খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে খুলনা ও বরিশাল বিভাগের নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ মহানগর, জেলা ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান-২০১৫-এ প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

খুলনা জেলা প্রশাসন এবং খুলনা দুর্নীতি দমন কমিশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

দুদক চেয়ারম্যান বলেছেন, দুর্নীতি একদিনেই শেষ করা যাবে না বা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একার পক্ষেও দুর্র্নীতি বন্ধ করা সম্ভব নয়। এ জন্য জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ এবং জনগণকে এগিয়ে আসতে হবে।

যারা আগামী ১০ বছরে দেশের নেতৃত্বে আসবে এমন যুব ও ছাত্র সমাজের মধ্যে দুর্নীতি বিরোধী সচেতনতা তৈরি করতে হবে। আমাদের সম্পদ হচ্ছে নতুন প্রজন্ম ও জনগণ। জনগণের শক্তির ওপর কোন শক্তি নেই।

তিনি বলেন, প্রথমত শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের দুর্নীতি জিরো টলারেন্সে নিয়ে আসতে চায় দুদক। আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতি বন্ধে কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। তাছাড়া দুদক মানুষের আস্থা অর্জনে চেষ্টা করছে, আর এ কাজটি আমাদেরকেই করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, মানুষের চাহিদা এখন অনেক বেশি, দক্ষতার সাথে তাদের চাহিদা পূরণে সরকারি কর্মকর্তাদের এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি দুর্নীতিকে প্রতিরোধ, দুর্নীতিবাজদের ঘৃণা এবং তাদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের মহাপরিচালক ড. মো. শামসুল আরেফীন, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুস সামাদ, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান এবং খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর।

সভাপতিত্ব করেন খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান। স্বাগত বক্তৃতা করেন খুলনা বিভাগীয় দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয়ের পরিচালক আবু মো. আরিফ সিদ্দিকি। অতিরিক্ত ডিআইজি একরামুল হাবিব, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মাহবুব হাকিম, পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমান সহ বিভিন্ন দপ্তরের সরকারি কর্মকর্তা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি এবং গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

২০১৫ সালে খুলনা বিভাগে ঝিনাইদহ শ্রেষ্ঠ জেলা নির্বাচিত হয়েছে। ১ম, ২য় ও ৩য় শ্রেষ্ঠ উপজেলা হচ্ছে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর, যশোরের অভয়নগর এবং খুলনার রূপসা উপজেলা। বরিশাল বিভাগে শ্রেষ্ঠ জেলা হিসেবে পিরোজপুর নির্বাচিত হয়েছে। বিভাগের ১ম, ২য় ও ৩য় শ্রেষ্ঠ উপজেলা হচ্ছে পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া, পটুয়াখালীর গলাচিপা এবং বরগুনার বেতাগী উপজেলা।

পরে প্রধান অতিথি শ্রেষ্ঠ জেলা ও উপজেলা দুর্র্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন।

এইচএইচ/এমকে

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন