শিরোনাম :

পালিত হচ্ছে সরস্বতী পূজা


রবিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:২৫ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

পালিত হচ্ছে সরস্বতী পূজা

ঢাকা: হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব বিদ্যার ও ললিতকলার অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতী পূজা আজ। মর্তের ভক্তক‚ল শ্বেতশুভ্র কল্যাণময়ী দেবী সরস্বতীর আহ্বান করবে। ঢাক-ঢোল-কাঁসর, শঙ্খ ও উলুধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠবে দেশের বিভিন্ন পূজামণ্ডপ।

শাস্ত্র মতে, প্রতিবছর মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথিতে দেবীর আরাধনা করা হয়। তিথিটি শ্রীপঞ্চমী বা বসন্ত পঞ্চমী নামেও পরিচিত। সনাতন ধর্মালম্বীদের মতে দেবী সরস্বতী সত্য, ন্যায় ও জ্ঞানালোকের প্রতীক। কল্যাণময়ী, ঐশ্বর্যদায়িনী, বুদ্ধিদায়িনী, জ্ঞানদায়িনী, সিদ্ধিদায়িনী, মোক্ষদায়িনী এবং শক্তির আধার হিসেবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা সরস্বতী দেবীর আরাধনা করেন।

সরস্বতী দেবী শ্বেতশুভ্র বসনা। দেবীর এক হাতে বেদ, অন্য হাতে বীণা। এজন্য তাকে বীণাপানিও বলা হয়। সনাতন ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, দেবী তার আশীর্বাদের মাধ্যমে মানুষের চেতনাকে উদ্দীপ্ত করতে প্রতিবছর আবির্ভূত হন ভক্তদের মাঝে। শিক্ষার্থীরাই এই পূজায় মনোযোগী হয়। বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঘরে ঘরে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকায় বিভিন্ন এলাকা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পূজার আয়োজন হলেও সরস্বতী পূজার প্রধান কেন্দ্র হয়ে উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল মাঠ। বিস্তীর্ণ এই মাঠজুড়ে সরস্বতী পূজা চমৎকার এক উৎসবে পরিণত হয়। এরই মধ্যে পূজা উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। জগন্নাথ হলকে ঘিরে রয়েছে নানা আয়োজন। কেন্দ্রীয় উপাসনালয় ও চারুকলার মণ্ডপসহ এ বছর হলের মাঠে প্রায় ৬৯টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। জগন্নাথ হলে পূজা মণ্ডপগুলোর মূল আকর্ষণ চারুকলার শিক্ষার্থীদের নির্মিত প্রতিমা। এবার প্রতিমার উচ্চতা ব্যাসসহ ৩৮ ফুট উঁচু।

বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত পঞ্জিকা মতে রোববার শুরু হয়ে সোমবার পর্যন্ত থাকবে এই তিথি। তাই দেবীর আরাধনা চলবে দুই দিনব্যাপী। ঢাকা রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশনে দুই দিনব্যাপী চলবে পূজার্চনা। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের মন্দির ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে পূজা ছাড়াও অন্য অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানমালায় রয়েছে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, হাতেখড়ি, প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা আরতি, আলোকসজ্জা প্রভৃতি।

ঢাকা রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশনে সকাল সাড়ে ৭টায় পূজারম্ভ হবে। সাড়ে ১০টায় দেবীর চরণে পুষ্পাঞ্জলি দেয়ার পর অনুষ্ঠিত হবে হোম। পরে ভক্তদের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হবে। সন্ধ্যায় আরাত্রিক ও ভজন সঙ্গীত পরিবেশন করবেন শিল্পীরা। সোমবার ৮টায় পূজারম্ভ, পুষ্পাঞ্জলি দেয়ার পর ৯টা ৪৫ মিনিটে দর্পণ বিসর্জন করা হবে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন