শিরোনাম :

রাসেল সরকার কৃত্রিম পা পেয়েছেন


বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ০২:০০ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

রাসেল সরকার কৃত্রিম পা পেয়েছেন

ঢাকা,১৮এপ্রিল(বাংলাপ্রেস): গ্রিনলাইন পরিবহনের বাসচাপায় পা হারানো সেই প্রাইভেটকারচালক রাসেল সরকার কৃত্রিম পা পেয়েছেন। সাভারের পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র (সিআরপি) থেকে কৃত্রিম পা পেয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাসেল বাঁ পা-টি সংযুক্ত করেন সিআরপির কৃত্রিম অঙ্গ সংযোজন বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ শফিক। রাসেলকে বিনামূল্যে সুইজারল্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল টেকনোলজির এ পা-টি দিয়েছে সিআরপি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চিকিৎসক শফিক জানান, কয়েক দিন আগে রাসেলের পায়ের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর বৃহস্পতিবার রাসেলের নতুন পা সংযোজন করা হয়েছে। তার এ পা নিয়ে স্বাভাবিক চলাফেরা করতে প্রায় চার সপ্তাহ সময় লেগে যাবে। আর এই সময়ের মধ্যে নতুন এ পা দিয়ে তার চলাফেরাসহ দৈনন্দিন কাজের বিষয়গুলোতেও অনুশীলন করানো হবে বলেও জানান তিনি।

কৃত্রিম পা লাগানোর পর রাসেল কিছু সময় হাঁটাহাঁটি করেন। সিআরপির পক্ষ থেকে কৃত্রিম পা পেয়ে খুশি রাসেল।

সিআরপির কৃত্রিম অঙ্গ সংযোজন বিভাগের প্রধান শফিক জানান, রাসেলকে আপাতত সুইজারল্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল টেকনোলজির পা দেয়া হয়েছে। পরে জার্মান প্রযুক্তির উন্নত একটি পা দেয়া হবে। এগুলো বিনামূল্যে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত রাসেল সরকার একটি প্রতিষ্ঠানের ভাড়া গাড়ি চালাতেন। গত বছরের ২৮ এপ্রিল কেরানীগঞ্জ থেকে ঢাকায় ফেরার পথে যাত্রাবাড়ীর হানিফ উড়ালসড়কে গ্রিনলাইন পরিবহনের বাসের চাপায় পা হারান। ঘটনার পর রাসেল বলেছিলেন- ফেরার সময় যাত্রাবাড়ীতে গ্রিনলাইন পরিবহনের একটি বাস তার গাড়িকে ধাক্কা দেয়। পরে গাড়ি থামিয়ে বাসের সামনে গিয়ে বাসচালককে নামতে বলেন তিনি।

তখন তার সঙ্গে বাসচালকের কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে বাসচালক গাড়ি চালাতে শুরু করেন। তখন রাসেল সরতে গেলে উড়ালসড়কের রেলিংয়ে আটকে যান। এ সময় রাসেলের পায়ের ওপর দিয়ে বাস চলে যায়। এর পর অস্ত্রোপচার করে তার বাঁ পা কেটে ফেলা হয়। এ ঘটনায় রাসেল সরকারের বড় ভাই আরিফ সরকার বাসচালক কবির মিয়ার বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ী থানায় একটি মামলা করেন।

ওই মামলায় গ্রিনলাইনকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রায় দেন হাইকোর্ট। বুধবার পাঁচ লাখ পরিশোধ করে গ্রিনলাইন।

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন