শিরোনাম :
   মিয়ানমারে বিলাসবহুল হোটেলে ব্যাপক আগুন, নিহত ১    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রক্টর ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী    রাবির ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে মেস মালিকদের চরম স্বেচ্ছাচারিতা    বর্ষিয়ান সাংবাদিক বাটুলের হীরক জন্ম জয়ন্তি    ঢাবি’র ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আগামীকাল    দেশব্যাপী ভ্রাম্যমান লাইব্রেরি কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে গণগ্রন্থাগার     বস্তিবাসীদের জন্য ১০ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ করবে সরকার    বেড়িবাঁধ পূনঃনির্মাণ কাজ উদ্বোধন:  দুঃখ ঘুচবে শাহ্পরীর দ্বীপের অর্ধলাখ মানুষের    ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য:  রেহাই পেলেন দুই আ. লীগ নেতা    নদীগর্ভে বিলীনের পথে নবনির্মিত সাইক্লোন সেল্টার

ত্রিদিব রায়ের নাম স্থাপনা থেকে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ


সোমবার, ২২ মে ২০১৭, ০৭:০০ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

ত্রিদিব রায়ের নাম স্থাপনা থেকে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ

ডেস্ক প্রতিবেদন: পার্বত্য চট্টগ্রামে সাবেক চাকমা রাজা ত্রিদিব রায়ের নামে সমস্ত স্থাপনা থেকে তার নাম সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় চাকমাদের তৎকালীন রাজা ত্রিদিব রায় পাকিস্তানের পক্ষে, বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন।

পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীগুলোর, বিশেষ করে চাকমাদের ভূমিকা নিয়ে বেশ বিতর্ক আছে।

সে প্রেক্ষাপটে রাঙামাটির দুজন বাসিন্দা হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করে বলেন, ত্রিদিব রায় একজন স্বাধীনতা বিরোধী হলেও তার নামে বিভিন্ন স্থাপনা রয়েছে।

একজন স্বাধীনতা বিরোধীর নাম অনুসারে কোন স্থাপনা থাকা উচিত নয় বলে রিট আবেদনকারীরা বলেন।

সে আবেদনের পর হাইকোর্ট আগামী ৯০ দিনের মধ্যে সকল স্থাপনা থেকে ত্রিদিব রায়ের নাম সরিয়ে ফেলার আদেশ দিয়েছে বলে জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।

তিনি জানান, ত্রিদিব রায়ের নামে কতগুলো স্থাপনা আছে সে বিষয়ে নিদিষ্ট কোন পরিসংখ্যান আদালতে তুলে ধরতে পারেননি রিট আবেদনকারীরা।

তারা শুধু একটি স্কুলের নাম উল্লেখ করেছেন যেটি ত্রিদিব রায়ের নাম অনুসারে নামকরণ করা হয়েছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টো ১৯৭৩ সালে রাজা ত্রিদিব রায়কে দেশের প্রেসিডেন্ট হবার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি বৌদ্ধ ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম হতে চাননি বলে পদ গ্রহণ করতে পারেননি।

চাকমাদের ৫০তম রাজা ত্রিদিব রায়-এর নাম ১৯৭২ সালের দালাল আইনে অভিযুক্তদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

তিনি সেই অভিযোগ মোকাবেলা করার জন্য কখনো বাংলাদেশে ফিরে আসেননি এবং ৭৯ বছর বয়সে ২০১২ সালের ১২ই সেপ্টেম্বর তাঁর মৃত্যু পর্যন্ত তিনি নির্বাসনে ছিলেন।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন