শিরোনাম :

ঢাবির ভিসি প্যানেল-সিনেট সভা অবৈধ: হাইকোর্ট


মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০১৭, ০৬:৩৭ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

ডেস্ক প্রতিবেদন: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য নির্বাচনে তিন সদস্যের প্যানেল মনোনীত করতে সিনেটের ২৯ জুলাই ডাকা বিশেষ সভার নোটিশ অবৈধ ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে সেই সভায় তিন সদস্যের মনোনীত প্যানেলকেও অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আগামী ছয় মাসের মধ্যে ‘যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে’ এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রায়ে।

এ বিষয়ে এর আগে হাই কোর্টের দেওয়া রুলের নিষ্পত্তি করে বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের বেঞ্চ মঙ্গলবার এই রায় দেয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে হাই কোর্টে এ বিষয়ে শুনানি করেন কামরুল হক সিদ্দিকী। আর রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান।

মোস্তাফিজুর রহমান খান সাংবাদিকদের বলেন, রুল পুরোপুরি মঞ্জুর করে রায় দিয়েছেন। ফলে ২৯ জুলাই ডাকা বিশেষ সভা ও ওই সভায় মনোনীত তিন সদস্যের উপাচার্য প্যানেল অবৈধ। এছাড়া ছয় মাসের মধ্যে যথাযথ প্রক্রিয়ায় সিনেট গঠনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ঢাবি কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সিনেট সভা আহবানের বিষয়ে গত ১৬ জুলাই ঢাবির রেজিস্ট্রার একটি চিঠি দেন। এতে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আদেশ, ১৯৭৩ আর ২১ (২) ধারার অর্পিত ক্ষমতাবলে উপাচার্য, ২৯ জুলাই বিকেল চারটায় সিনেটের বিশেষ সভা আহ্বান করেছেন। বিশেষ সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আদেশ ১৯৭৩, ১১(১) ধারা অনুযায়ী চ্যান্সেলরের মাধ্যমে ভাইস চ্যান্সেলর নিয়োগের জন্য তিনজনের একটি প্যানেল মনোনয়ন করা হবে।

ভাইস চ্যান্সেলরের প্যানেলে যাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রস্তাব করা হবে, নাম প্রস্তাবের সময় তাদের লিখিত সম্মতি সিনেট চেয়ারম্যানের কাছে পেশ করতে হবে। সভায় উপস্থিত থাকার জন্য সবাইকে অনুরোধ করা হয়।

ওই বিশেষ সভার নোটিশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ জন শিক্ষকসহ ১৫ জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট রিট করেন। রিটের ওপর শুনানি নিয়ে গত ২৪ জুলাই হাইকোর্ট রুলসহ নোটিশের কার্যকারিতা স্থগিত করেন।

এই আদেশ স্থগিত চেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবেদন করে, যার শুনানি নিয়ে ২৬ জুলাই হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত বিষয়টি নিয়মিত বেঞ্চে পাঠান। এর ধারাবাহিকতায় ৩ আগস্ট আপিল বিভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নির্বাচনের জন্য মনোনীত তিন সদস্যের প্যানেলের পরবর্তী কার্যক্রম স্থগিত করে রিটটি চার সপ্তাহের মধ্যে হাইকোর্টে নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন। ২১ আগস্ট রিটের ওপর হাইকোর্টে চূড়ান্ত শুনানি শুরু হয়।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন