শিরোনাম :

আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল আইটি সিস্টেম-এর চ্যালেঞ্জ ও করণীয়


মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর ২০১৬, ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল আইটি সিস্টেম-এর চ্যালেঞ্জ ও করণীয়

ডক্টর শাহ জাহান মিয়া:

আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল আইটি সিস্টেম নতুন কোন প্রযুক্তি নয়। ২০০৬ সালে Northrop from Carnegie Mellon Software Engineering Institute ও তার সহকর্মীরা প্রথম এই প্রযুক্তিগত ধারণা ব্যবহার করে United States Department of Defense এর তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর সমস্যা গুলো ব্যাখ্যা করেন।

আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল সিস্টেম এর ব্যপারটি আসলে যেকোন জটিল প্রযুক্তি-
নির্ভর সিস্টেম এর ধারক ও বাহক হিসেবে দেখা যেতে পারে। এই ধারণাকে ব্যবহার করে ইউএস এবং ইউকে এর অনেক জটিল তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সমস্যার সমাধানের উপায় খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে। আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল আইটি সিস্টেম এর ধারণাটা আসলে কম্পিউটার সাইন্স, সফ্টওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং এবং সিস্টেমস সাইন্স বিষয়ের একটা ক্রস ফারর্টিলাইজেসন মাত্র। এই ধারণা এমন একটা সিস্টেম এর কথা বলে যেটা কিনা এক সাথে অনেক সমস্যার সংযোজন, বিয়োজন, পরিমার্জন এবং পরিসংশোধন করার ক্ষমতা রাখে। এটি একই সাথে অসংখ্য ব্যাবহারকারীর জন্য, বহু সংস্থার জন্য, অনেক কনফিক্টিং লক্ষ্য অর্জনে এবং অত্যন্ত জটিল নির্ভরশীল ও অনির্ভরশীল সমস্যা সমাধানের সহায়ক। এই ধরনের সিস্টেম গঠনের মূলে অবশ্যই হার্ডওয়ার, সফ্টওয়ার, নেটওয়ার্ক ডিভাইসেস্ এর উপযুক্ত সমন্বয়ের কথা বলা আছে। আসলে এই আর্কিটেকচারটা তৈরির মূলে রয়েছে মানুষ এবং যন্ত্রের অক্ষমতার সয়ংক্রিয় পরিশোধক। এই জন্য এই ধারণাটাকে বলা যায় "cutting-edge technology"।

Northrop অবশ্য আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল আইটি সিস্টেম আর্কিটেকচারের কিছু কিছু চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য দিয়েছেন।

(১) এই সিস্টেম সব সময় ডিসেন্ট্রলাইজ ডেটা এবং এর উন্নয়ন, বৃদ্ধি ও অপারেশনাল কন্ট্রোল এর কথা বলে।
(২) এই সিস্টেম সবসময় কনফিক্টিং, পরিবর্তনশীল, অজানা এবং অপ্রত্যাশিত সমস্যা সমাধানের কথা বলে।
(৩) এই সিস্টেম বহুব্যবহারকারীর আনপ্রিডিকটেবল ক্ষেত্র এবং সামগ্রীক জটিল পরিবেশের কথা বলে।
(৪) সর্বোপরি এই সিস্টেম সবসময় নতুন পদ্ধতি খুজতে থাকে যাতে করে সব তথ্যের সমন্বয়, প্রযোজনা ও পরিচালন করা যায়-সঠিক তথ্য প্রবাহ সৃষ্টির মাধ্যমে।

Kevin Sullivan ২০১১ সালের আগষ্ট মাসে তার গবেষণা প্রবন্ধে লিখেছেন, আমেরিকার স্বাস্থ্যসেবার সিস্টেমটা আসলেই একটি আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল তথ্য প্রযুক্তি সিস্টেম, যেটার কিনা backbone জাতীয় স্কেলে একটা জটিল স্যোসিও-টেকনিকেল পরিবেশকে বুঝায়। এই পরিবেশে অনেক ধরনের ইনফরমেশন প্রসেসিং সিস্টেম এর সাব-পার্ট সংযুক্ত। আমাদের বাংলাদেশে সম্প্রতি সরকারি এবং বেসরকারি সার্বিক উদ্যোগে বহু তথ্য প্রযুক্তি সিস্টেম এর উন্নয়ন এবং প্রয়োগ শুরু হয়েছে। এই উন্নয়ন এবং প্রয়োগের অবস্থান এখন বিভিন্ন স্তরে। আমাদের এই সব বিছিন্ন তথ্য প্রযুক্তি সিস্টেম এর সবচেয়ে বড় অভাব টা হচ্ছে এদের মধ্যকার সংযোগ বিচ্ছিন্নতা, সমন্বয়হীনতা এবং ভবিষ্যত অপশন সংযোগের ব্যবস্থাহীনতা। যদি এটার সমাধান এখন থেকেই না আসে তাহলে সব কিছুই কোন দিন হয়ত অর্থহীন পৃথক পৃথক অংশে পরিনত হবে যেটা কিন্তু খুবই ঝুকিপূর্ণ এবং অপরিনত তথ্যব্যবস্থা। আর এটা যদি হয় স্বাস্থসেবার সিস্টেমে তবে ক্ষয় ক্ষতির পরিমান হবে ধারণাতীত। এটাই উপযুক্ত সময় বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টার সময় উপযুক্ত সঠিক পদক্ষেপ গ্রহন করার, অতীতে তিনি যেটা অত্যন্ত সাফল্যের সাথেই করেছেন। আর এই পদক্ষেপ টা হতে পারে আল্ট্রা-লার্জ-স্কেল আইটি সিস্টেম ফিলোসফি ব্যবহার করে। ভবিষ্যতের জন্য, নতুন প্রজন্মের স্বপ্ন ও চিন্তাধারার অন্নেষণে, প্রযুক্তি নির্ভর জাতি গঠনে বর্তমান সরকারের এই পদক্ষেপ হতে পারে, sustainable এবং county-wide লার্জ-স্কেল আইসিটি উন্নয়নে আসন্ন অপ্রত্যাশিত সমস্যা সমাধানের সম্ভাব্য পথপদর্শক।

লেখক: সিনিয়র একাডেমিক এবং আইসিটি বিষয়ক গবেষক, ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি, মেলবোর্ন, অষ্ট্রেলিয়া

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন