শিরোনাম :

প্রসঙ্গ সড়কে মৃত্যুর মিছিল


রবিবার, ২২ অক্টোবর ২০১৭, ০৪:১২ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

প্রসঙ্গ সড়কে মৃত্যুর মিছিল

রেজানুর রহমান: রেজানুর রহমানছোট্ট ঘটনা। সাত সমুদ্র তেরো নদীর ওপারে দেশ আমেরিকার আদালতে বিচারকার্য চলছে। রাস্তায় নির্ধারিত স্পিড লিমিট অতিক্রম করায় একজন গাড়ি চালককে আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে। গাড়ি চালকের স্ত্রী ও দুই সন্তানও আদালতে উপস্থিত। পরিবারের সকল সদস্যকে নিয়ে শহরের ভেতরের রাস্তায় গাড়ি চালাচ্ছিলেন ওই ব্যক্তি। শহরের ভেতরের রাস্তায় গাড়ির স্পিড লিমিট সর্বোচ্চ ২৫ কিলোমিটার। কিন্তু তিনি ৩০ কিলোমিটারেরও বেশি স্পিডে গাড়ি চালিয়েছেন। ফলে পুলিশ তার গাড়ি থামায় এবং রাস্তায় স্পিড লিমিট অতিক্রম করার অপরাধে আদালতে মামলা করে। সেই মামলারই শুনানি চলছিল। বিচারকের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে গাড়ি চালক অপরাধ করা সত্ত্বেও বার-বার নিজেকে নিরপরাধ প্রমাণের চেষ্টা করছিলেন। বিচারক এক পর্যায়ে গাড়ি চালকের শিশু পুত্রকে তার কাছে ডেকে নেন। শিশুটি কোনও ধরনের ভয় ডর ছাড়াই বিচারকের টেবিলের কাছে গিয়ে দাঁড়ায়। বিচারক শিশুটির সামনে একটি মাইক বাড়িয়ে দিয়ে আদরের ভঙ্গিতে প্রশ্ন করেন, আচ্ছা তুমিই বলোতো তোমার বাবা রাস্তায় গাড়ি চালানোর সময় অন্যায় করেছে? নাকি অন্যায় করেনি? ‘guilty or not guiltiy’ শিশুটি একবারও ইতস্তত করলো না। বাবা-মায়ের দিকেও তাকালো না। বরং বিচারকের চোখের দিকে তাকিয়ে সরাসরি বলল– ‘guilty’। অর্থাৎ তার বাবা রাস্তায় গাড়ি চালাতে গিয়ে অন্যায় করেছে। সঙ্গে সঙ্গে আদালতে করতালিতে মুখর হয়ে ওঠে। বিচারক সোৎসাহে বলে ওঠেন– an honest boy. বিচারক বিনীত ভঙ্গিতে শিশুটির সঙ্গে ‘হ্যান্ডশেক’ করেন এবং গাড়ি চালকের দিকে তাকিয়ে বলেন– It's official, you are guilty. রায় দেওয়ার পাশাপাশি বিচারক ওই গাড়ি চালককে উপদেশও দেন– আপনার একটা সুন্দর পরিবার আছে। কাজেই তাদের কথা ভেবে রাস্তায় কখনও স্পিড লিমিটের বাইরে গাড়ি চালাবেন না। বিচারক একাধিকবার গাড়ি চালকের শিশু পুত্রের সত্য নিষ্ঠার প্রশংসা করেন। আদালতজুড়ে বাদী-বিবাদী সকলেই তখন আনন্দে হাত তালি দিচ্ছিলো...

রাস্তায় ট্রাফিক আইন অমান্য করেছে। আদালতে মামলা হলো। তড়িৎ গতিতে তার বিচারও হলো। আমাদের দেশে কি এটা সম্ভব? আমেরিকার ঘটনাটি ভাবুন তো একবার। বিচার ব্যবস্থার প্রতি কী শ্রদ্ধা সবার। সেই শিশুটির কথা একবার ভাবুন– অবলীলায় সে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলো। আমাদের দেশে, আমাদের শিশুদেরকে কি আমরা এইভাবে তৈরি করতে পারছি? বাবা-মা অন্যায় করেছে কোনও ছেলে-মেয়ের সাহস হবে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলার? অথচ অন্যায় তো অন্যায়ই... এই শিক্ষা কি আমাদের শিশুদের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে?

শহরের ভেতরে গাড়ি চালানোর স্পিড লিমিট ২৫ কিলোমিটার। সেটা ভঙ্গ করার অপরাধে শাস্তি পেলো আমেরিকার গাড়ি চালক। আর আমাদের দেশে কিসের স্পিড লিমিট? কিসের কী? গাড়ি আমার। কাজেই আমার ইচ্ছা মতো আমি গাড়ি চালাবো। আপনি বলার কে? বিশেষজ্ঞদের মতে, সড়ক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সরকার বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করলেও একাধিক কারণে তা কাজে আসছে না। কারণ গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো– সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে সরকারের পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ধীর গতি, অনেক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে পরিবহন মালিক শ্রমিক সংগঠনগুলোর বিরোধিতার পাশাপাশি সড়ক দুর্ঘটনা রোধে আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে সীমাহীন দুর্বলতা। অথচ কে না জানে একটি দেশ কতটা সভ্য, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কতটা ভালো তা দেশটির যে কোনও শহর কাঠামো বিশেষ করে রাস্তা ঘাটের পরিবেশ দেখলেই বুঝে নেওয়া যায়। বাংলাদেশের কোনও শহরেই কি এরকম পরিবেশ আছে? স্পিড লিমিটের কথা না হয় বাদই দিলাম, প্রকাশ্য দিবালোকে পথচারীকে চাপা দিয়ে গেলো কোনও যান-বাহন, পথচারীর মৃত্যু হলো। এমন পরিস্থিতিতে কি দোষী ব্যক্তির সাজা হয়? এসব কথা ভেবে আমেরিকার সেই ছোট্ট শিশুটির কাছে নিজেদেরকে খুবই তুচ্ছ মনে হচ্ছে। সে তার বাবাকেও অপরাধী বলার নৈতিক শিক্ষা অর্জন করেছে। সেখানে নিজ দেশে আমরা বড়রা বরং সত্যকে অবলীলায় গোপন করি। যেনো সত্যকে গোপন করতে পারাটাই বড় যোগ্যতা।

এখন প্রশ্ন হলো– সত্যটা শেখাবে কে? সহজ উত্তর পরিবার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অথচ আমাদের দেশে দুটি ক্ষেত্রেই নাজুক পরিস্থিতি। নীতি, নৈতিকতাকে জলাঞ্জলি দিয়ে পরিবার ভেঙে যাচ্ছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে সরকারি বেসরকারি পর্যায়ের বৈষম্য দিনে দিনে প্রকট হয়ে উঠছে। ফলে মূল্যবোধের অবক্ষয়ে সমাজ কাঠামো ভেঙে পড়ছে। এর থেকে পরিত্রাণের উপায় কী?

জাতীয় একটি দৈনিকের প্রতিবেদনে দেখলাম গত ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ২২৮ দিনে সারাদেশে মোট ১ হাজার ৪৮১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২ হাজার ১১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আরেকটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিবেদনে দেখলাম সড়ক দুর্ঘটনায় বছরে বাংলাদেশের গড়ে আর্থিক ক্ষতি হয় ৪০ হাজার কোটি টাকা। ভাবুন তো একবার কী ভয়াবহ পরিস্থিতি। দুর্ভাগজনক হলেও সত্য এই সহস্রাধিক দুর্ঘটনায় এতো মানুষের অকাল মৃত্যু ঘটলো অথচ এর কোনও বিচার হয়নি। সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত অসহায় এই মানুষগুলোর অনেকেই কোনও না কোনও পরিবারের একমাত্র কর্মক্ষম সদস্য ছিলেন। তাদের আয়-রোজগারের ওপরই পরিবারের সদস্যদের ভরন, পোষণ, লেখাপড়া, চিকিৎসা ব্যয় সহ সবকিছুই চলত। এখন তারা নেই। অসহায় পরিবারগুলোর কথা ভাবুন তো একবার। কেমন আছে পরিবারগুলো? কেউ কি তাদের খোঁজ-খবর রাখেন? এমন যদি হতো অব্যাহত সড়ক দুর্ঘটনার সুষ্ঠু বিচার হচ্ছে। দোষী ব্যক্তিরা শাস্তি পাচ্ছে। তাহলেও না হয় ভরসার একটা জায়গা খুঁজে পাওয়া যেতো।

তাহলে সারাংশে কী দাঁড়াচ্ছে– সারাদেশে এভাবেই সড়ক দুর্ঘটনায় অসহায় মানুষের মৃত্যুর মিছিল বাড়তেই থাকবে? আজ ২২ অক্টোবর রবিবার সড়ক নিরাপত্তা দিবস। পত্র-পত্রিকায় দিবসটির গুরুত্ব তুলে ধরে একাধিক রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে। জানি না এতে কার কী লাভ হবে? আবারও যুক্তরাষ্ট্রের সেই শিশুটির কথা মনে পড়ছে। কী অবলীলায় সে সত্য প্রকাশ করলো। সত্য প্রকাশে সে তার বাবাকে ছাড় দিলো না। সত্য প্রকাশে এমনই সাহসী মানুষ চাই। সাহসী মানুষ... 

লেখক: নাট্যকার, সাংবাদিক, কথাসাহিত্যিক ও সম্পাদক, আনন্দ আলো। বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন