শিরোনাম :

'হয়তো অনেক রাজন ভবিষ্যতে বেঁচে যাবে এই কারণে'


সোমবার, ১৩ জুলাই ২০১৫, ০৪:৫৩ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

'হয়তো অনেক রাজন ভবিষ্যতে বেঁচে যাবে এই কারণে'

ডেস্ক প্রতিবেদন: সিলেটের শেখ মো. সামিউল আলম রাজনের মৃত্যু নিয়ে সরব হয়েছেন সৌদি আরবের মক্কায় অবস্থানরত পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার আলম এমপিও।

বাংলাদেশ সময় সোমবার বিকেল তিন টার দিকে তিনি তাঁর ফেসবুক পেজে আবারও রাজনের বিষয়ে স্টাটাস দিয়েছেন।

তাঁর ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন:

"আমি ভিডিওটা দেখার মতন মানসিক শক্তি সঞ্চয় করতে পারিনি। একটা কথা মনে হচ্ছে, বলেই ফেলি। বুকে হাত দিয়ে বলুন তো, এই ধরনের ঘটনা আমরা ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছিনা? চলার পথে, হাটে-বাজারে, রাস্তাঘাটে? আমি নিশ্চিত ঘটনাস্থলের পাশ দিয়ে যাবার পথে অনেকে মারতে যোগদানও করেছেন। কতজন কতবার প্রতিরোধ করেছি আমরা? অনেকে কারণে-অকারণে রিকশাওয়ালেকে মারেন, বাড়ীর কাজের লোকের কথা না হয় বাদই দিলাম।"

ভিডিওটি শেয়ারকারীকে নিয়ে তিনি লিখেন, "ধন্যবাদ জানাই তাকে যিনি ভিডিওটা সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করেছেন। হয়তো অনেক রাজন ভবিষ্যতে বেচে যাবে এই কারণে।" রাজন হত্যা I have spoken to local police authority. 3 brothers of same family involve alongwith few others. One brother already arrested and he has confessed. এর আগে গত রাতে এ বিষয়টি নিয়ে একটি সংবাদও শেয়ার করেছিলেন তিনি। তাঁঁর শেয়ারকৃত সংবাদটি ছিল: "শিশু রাজন হত্যায় জড়িত কামরুলের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা সিলেটে শিশু শেখ সামিউল আলম রাজন (১৪) হত্যার ঘটনায় জড়িত সৌদি আরব প্রবাসী কামরুল ইসলামের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে পুলিশ। রাজনকে নির্মমভাবে নির্যাতন করার ভিডিওচিত্র দেখে কামরুলের সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত হয়ে রোববার বিকেলে পুলিশ এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। সিলেট মহানগরীর জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, আমরা ঢাকাস্থ পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চে কামরুলের দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে বেতারবার্তা ও চিঠি দিয়েছি। এছাড়া, রোববার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতে রাজন হত্যা মামলার প্রধান আসামি মুহিত আলমের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালতের বিচারক ফারহানা ইয়াসমিন সোমবার রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানির দিন ধার্য করেন।" প্রসঙ্গত, গত ৮ জুলাই সিলেট শহরের কুমারগাঁওয়ে চোর ‘অপবাদে’ সামিউল আলম রাজনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। নির্যাতনকারীরা শিশুটিকে নির্যাতনের চিত্র মোবাইল ফোনে ধারণ করে। ২৮ মিনিটের সে ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে শুরু হয় তোলপাড়। বাংলাপ্রেস.কম.বিডি/এএইচ

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন