শিরোনাম :

অটোরিকশা রাখা, না-রাখা প্রসঙ্গে


শনিবার, ১ আগস্ট ২০১৫, ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

অটোরিকশা রাখা, না-রাখা প্রসঙ্গে

মনসুর আলী:

লেখার শুরুতেই বলতে হয় চট্টগ্রাম মহানগরীর দক্ষিণ হালিশহর এলাকাটি একটি জনবহুল বিশেষ করে গার্মেন্টস শিল্প এলাকা। গার্মেন্টস তথা ইপিজেড, কেইপিজেড কে কেন্দ্র করেই এখানকার ঘনবসতি বা জীবন জীবিকা। কালের পরিবর্তনে মানুষের জন্যই সব কিছুর প্রয়োজন। এই প্রয়োজনের তাগিদেই আবিষ্কার। তেমনি আবিষ্কৃত হয়েছে যানবাহনের। কিন্তু এই এলাকায় লোকসংখ্যার যাতায়াতের অনুপাতে যানবাহন বেশি নয়।

সকাল, বিকাল, সন্ধ্যায়, রাতে যখন ইপিজেড-এর জন্য যাতায়াত শুরু হয় তখনি বুঝা যায় গণপরিবহণের অপ্রতুলতা কতটুকু। সম্প্রতি ব্যাটারি-চালিত অটোরিকশা চালু হওয়াতে (ইপিজেড থেকে কাটগড়) এই অপ্রতুলতা অনেকটা কাটিয়ে উঠে। মানুষের মাঝে স্বস্তির নিঃশ্বাস আসে। কিন্তু বাধ সাধে এখানে পুলিশ। কয়েকদিন যেতে না যেতেই হুটহাট করে বন্ধ করে দেয়, আবার দু/তিন দিন পর ছেড়ে দেয় অর্থাৎ রাস্তায় চালাতে দেয়। এই বন্ধ ও চলার খেলার মধ্য দিয়ে সময় যাচ্ছে। ভোগান্তি বাড়ছে খেটে খাওয়া মানুষদের। শোনা যায়, পুলিশ ইচ্ছামতো অটোরিকশা চলাচলের বিষয়টি নির্ধারণ করে।

আমার কথা হচ্ছে, বন্ধ করার আইনগত প্রয়োজন হলে পুলিশের তা একেবারেই বন্ধ করা দেয়া উচিৎ, আর যদি চলতে দিতে হয় তবে চলুক। এই ব্যাটারি-চালিত অটোরিকশাগুলো এখনো পর্যন্ত তেমন কোন বড়ধরনের দূর্ঘটনা ঘটায়নি। যাত্রী সাধারণের কথা বিবেচনায় এনে যতদিন না অন্য কোন আরো অধিকতর নিরাপদ যানবাহন বা গণপরিবহন না আসে ততদিন পর্যন্ত এই ব্যাটারি-চালিত অটোরিকশা গুলো রাস্তায় চলতে দেয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি। এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দুর্নীতি-মুক্ত সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

লেখক: কথা সাহিত্যিক

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন