শিরোনাম :

প্রশ্নবিদ্ধ শিক্ষার মান ও সুশাসন


বৃহস্পতিবার, ১ অক্টোবর ২০১৫, ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

প্রশ্নবিদ্ধ শিক্ষার মান ও সুশাসন

রাশেদা কে চৌধরী : আমরা এখন দেখছি, শিক্ষকদের মধ্যেও সাংঘাতিকভাবে মূল্যবোধের অবক্ষয় ঘটছে। এমনভাবে তারা কোচিং আর গাইড বাণিজ্য শুরু করেছেন যে তা থেকে বের করে আনা যাচ্ছে না। সেটার জন্যে আমরা শিক্ষক সমাজকে রাতারাতি দায়ি করতে পারব না। কারণ, তাদের বেতন-ভাতা যথেষ্ট না। এটা হওয়া উচিত ছিল না। আমরা শিক্ষকদের বলছি চালিকাশক্তি, আমাদের নতুন প্রজন্ম তৈরি করছেন তারা। আমরা দেখছি, অতিরিক্ত আয়ের জন্যে শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য করতে হচ্ছে। আবার আয় যথেষ্ট নয় বলে মেধাবীরা এই পেশায় আসছেন না। ফলে প্রজন্মের পর প্রজন্ম আমরা দুর্বল শিক্ষকদের হাতে শিক্ষাব্যবস্থা ছেড়ে দিচ্ছি। অবশ্যই ভাববার বিষয়। প্রতিবেশি দেশ ভারতই এক্ষেত্রে উদাহরণ হিসেবে আমাদের সামনে আছে। আমাদের সমাজে আজ সবচেয়ে বেশি প্রশ্নবিদ্ধ হল, শিক্ষার মান আর সুশাসন। কোয়ালিটি এডুকেশন অ্যান্ড গুড গভর্নেন্স। এই দুই সেক্টরে যদি আমরা উন্নতি করতে পারি বাকি ক্ষেত্রগুলো অটোমেটিক তার সুফল বহন করবে। দুর্নীতি যদি রন্ধে রন্ধে বাসা বাঁধে, তাহলে তো অনেক ভালো কাজেরই ফসল ঘরে তুলতে পারবো না। এখনো তো বোধহয় জিডিপির প্রায় দুই শতাংশ খেয়ে ফেলে দুর্নীতি, নারীর বিরুদ্ধে সহিংশতা খেয়ে ফেলে আরো দুই শতাংসের মতো। আমাদের শিক্ষার বাজেট কম, এইগুলো দিয়েই তো আমরা শিক্ষার বাজেট বাড়াতে পারতাম। সুশাসনের সঙ্গে মানসম্মত শিক্ষার গভীর সম্পর্ক আছে। সুশাসন না থাকলে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব না। আর মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত না করতে পারলে মানসম্মত চিকিৎসা ব্যবস্থাও পাবো না। ফ্রিডম অব চয়েস বলে একটা বিষয় আছে। কোনো সচ্ছ্বল বাবা তার সন্তানকে ইংলিশ মিডিয়ামে পড়াতে চাইলে আমরা না করতে পারব না। আবার কেউ মাদরাসায় পড়াতে চাইলেও আমরা বাধা দিতে পারি না। এটা গণতন্ত্রের অংশ। আমরা যেটা করতে পারি, আমাদের সংস্কৃতির বিষয়ভিত্তিক পাঠদানে একটা ঐক্য রাখতে পারি। শিক্ষার মধ্যে কিন্তু উত্তোরণের দিক নির্দেশনা ছিল। শিক্ষানীতিতে সুনির্দিষ্ট করে বলা আছে, ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত এই তিন ধারায় ৫টি বিষয় এক হবে। কিন্তু সেটা মনিটরিং করছে কে? ইংলিশ মিডিয়াম সেটা মানে? মাদরাসা মানে? উদ্দেশ্যটা মহৎ কিন্তু তার বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। রাশেদা কে চৌধুরী : গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক উপদেষ্টা। বাংলাপ্রেস.কম.বিডি/এমজে

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন