শিরোনাম :

বাঁশখালীতে ইউপি ভোট স্থগিত, এমপির বিরুদ্ধে মামলার সিদ্ধান্ত


বুধবার, ১ জুন ২০১৬, ০৬:৩৭ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

বাঁশখালীতে ইউপি ভোট স্থগিত, এমপির বিরুদ্ধে মামলার সিদ্ধান্ত

চট্টগ্রাম অফিস: চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে উপজেলা নিবার্চন কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামকে পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় উপজেলার সব ইউনিয়ন পরিষদের ভোট স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন।

এ ছাড়া বাঁশখালীর সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম।

বুধবার বিকালে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কর্মকর্তাকে মারধরের কারণে বাঁশখালী উপজেলার সব নির্বাচন বন্ধ করা হয়েছে। স্থানীয় সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে মামলা করা সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এই মামলা করবেন।’

চট্টগ্রামের বাশঁখালির সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমানের নির্দেশ মোতাবেক কাজ না করায় এমপি নিজেই উপজেলা নিবার্চন কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামকে পিটিয়ে আহত করেছেন বলে অভিযোগ উঠে।

আহত নির্বাচনী কর্মকতাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলা নির্বাচন অফিসে এ মারধরের ঘটনা ঘটে । এ নিয়ে সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

আহত জাহিদ হোসেনের অভিযোগ, বোধবার বেলা ১২টার দিকে আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা সংসদ সংসদ সদস্য আমাকে ডাকছে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে যায় এবং তাদের দেয়া (আওয়ামী লীগ নেতাদের) তালিকানুযায়ি প্রিসাইডিং অফিসার নিয়োগ না দেওয়ায় কারণ জানতে চেয়েই মারধর শুরু করেন।

তিনি বলেন, কয়েকদিন আগে ৪ নম্বর বাহারছড়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী তাজুল ইসলাম প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োগের জন্য তাকে একটি তালিকা আমাকে দিয়েছিলেন। আমি পুরোপুরি ঐ তালিকা মত নির্বাচনী কর্মকর্তা না দেয়ায় এমপি নিজেই আমাকে মারেন। এবং তার সঙ্গে থাকা আওয়ামী লীগের নেতারাও তাকে মারধর করেন বলে অভিযোগ করেন এ কর্মকর্তা।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল বাতেন জানান, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কথামতো কাজ না করায়, তার অনুসারীদের ভোটকেন্দ্রে এজেন্ট নিয়োগ না দেয়ায় উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছেন এমপি মোস্তাফিজুর রহমান ও তার অনুসারীরা।

এ নিয়ে আমরা প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে জানিয়েছি। এবং আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে শারীরিক নির্যাতনের শিকার আহত নির্বাচন কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামকে প্রথমে স্থানীয় ক্লিনিকে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে চট্টগ্রাম নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে।

এসআই/এমকে

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন