শিরোনাম :

আ'লীগ সভাপতিকে গণসংবর্ধনা বিকালে


শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮, ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

আ'লীগ সভাপতিকে গণসংবর্ধনা বিকালে

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠান আজ শনিবার বিকেল ৩টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হবে। স্বল্পোন্নত থেকে বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণের মাধ্যমে মহাকাশ বিজয়, অস্ট্রেলিয়ায় গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড ও ভারতের আসানসোলে কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিলিট ডিগ্রি অর্জন করায় আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীকে এ গণসংবর্ধনা দেওয়া হবে।

ক্ষমতাসীন দলের ব্যানারে আয়োজিত হলেও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের উপস্থিতির মাধ্যমে আজকের গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে সার্বজনীন রূপ দিতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। সংবর্ধনা সমাবেশে লাখ লাখ মানুষের উপস্থিতি নিশ্চিত করে জনসমুদ্রে পরিণত করার পরিকল্পনাও নেওয়া হয়েছে।

রাজধানী ঢাকার আওয়ামী লীগ ও এর সব সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মী, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মী এবং মুক্তিযোদ্ধা ও সাধারণ মানুষ ছাড়াও মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলার বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী এতে যোগ দেবেন। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানের প্রতি সংহতি জানিয়ে একটি প্রতিনিধি দল পাঠাবে। বাস, ট্রাক ও রেলপথে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে নেতাকর্মীরা ঢাকায় এসে বর্ণিল মিছিল নিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমবেত হবেন। আর ঢাকা ও আশপাশের এলাকার এমপিদের নিজ নিজ এলাকার নেতাকর্মীর উদ্যোগে গণসংবর্ধনায় সমবেত করার বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। গণসংবর্ধনাস্থল সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ছাড়াও আশপাশের কয়েক বর্গকিলোমিটার এলাকায় বিশাল জনসমাগম ঘটাতে নেতারা প্রস্তুতি নিয়েছেন।

অনুষ্ঠানের সূচি অনুযায়ী, এই গণসংবর্ধনায় দলের পক্ষ থেকে শেখ হাসিনাকে সম্মাননাপত্র দেওয়া হবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ সম্মাননাপত্র পাঠ করে প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দেবেন। কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যক্তি তাদের বক্তব্যে শেখ হাসিনা ও তার সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন-অর্জন তুলে ধরবেন। গণসংবর্ধনার শুরুতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে। প্রযুক্তি ব্যবহার করেও উন্নয়নের ভিডিওচিত্র অনুষ্ঠানে তুলে ধরা হবে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটির পক্ষ থেকে সরকারের অর্জন ও উন্নয়ন সংবলিত একটি প্রকাশনা সবার হাতে তুলে দেওয়া হবে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী।

মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণে অবদান রাখায় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়কে এ গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ছেলে জয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলেও জানিয়েছেন দলের নেতারা।

এদিকে, গণসংবর্ধনার প্যান্ডেলে চিত্র প্রদর্শনী থাকছে, গতকাল শুক্রবার যার উদ্বোধন করেন ওবায়দুল কাদের। এই চিত্র প্রদর্শনীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন বয়সের ১৬টি ছবি স্থান পেয়েছে। বরেণ্য চিত্রশিল্পী হাশেম খানের নেতৃত্বে ১৬ জন শিল্পী ছবিগুলো এঁকেছেন।

প্রস্তুতি শেষ :গণসংবর্ধনাকে সফল করতে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো কয়েকদিন ধরে দফায় দফায় যৌথ সভা, প্রস্তুতি সভা, কর্মিসভাসহ সর্বাত্মক প্রস্তুতির কাজ করেছে। এরই মধ্যে ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী জেলার নেতা ও সাংসদদের সঙ্গে যৌথ সভাও হয়েছে। গতকাল শুক্রবারও কয়েকটি সহযোগী সংগঠন এ ধরনের প্রস্তুতি সভা করে। বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এবং বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর নেতৃত্বে মঞ্চ, মাঠ ও আশপাশের সাজসজ্জায় একটি উপকমিটি গঠন করা হয়েছিল। উপকমিটির তত্ত্বাবধানে মঞ্চ নির্মাণ ও সাজসজ্জার কাজ শেষ হয়েছে। গতকাল শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি দেখতে দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পরিদর্শন করেছেন।

অন্যদিকে সমাবেশে সার্বিক নিরাপত্তার তত্ত্বাবধানে রয়েছে স্বেচ্ছাসেবক লীগ। সরকারি বিভিন্ন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা এ নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন। তাদের ইতিমধ্যে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

গতকাল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রস্তুতি দেখতে এসে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এবারের অনুষ্ঠানে বক্তব্য বেশি থাকবে না। আসলে অনুষ্ঠানের মূল ফোকাসই থাকবে শেখ হাসিনাকে গণসংবর্ধনা দেওয়া। এই অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী আগামী নির্বাচনসহ সব বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা দেবেন বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

প্রস্তুত সোহরাওয়ার্দী উদ্যান :গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠান উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিশাল মঞ্চ নির্মাণ ও সাজসজ্জা করা হয়েছে। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন সংলগ্ন উদ্যানে দক্ষিণমুখী করে এ মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। বিশাল প্যান্ডেলে হাজার হাজার মানুষের বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। মূল প্যান্ডেলে প্রতিটি চেয়ারে একটি করে জাতীয় পতাকা থাকবে।

একই সঙ্গে গোটা উদ্যানকেও রঙবেরঙের বেলুন ও ফুল ছাড়াও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিসহ সরকারের উন্নয়ন ও অর্জনের তথ্যসংবলিত পোস্টার, ফেস্টুন ও ব্যানার দিয়ে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনের সড়ক থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সাতটি প্রবেশমুখেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, শেখ হাসিনা, শেখ রেহানাসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের বড় আকারের ছবি শোভা পেয়েছে। আশপাশের সব সড়কে নির্মিত তোরণগুলোতে শেখ হাসিনার ছবি ও বিভিন্ন খাতে উন্নয়ন ও অর্জনের কথা স্লোগানে-স্লোগানে তুলে ধরা হয়েছে।

অনুষ্ঠানস্থলে বড় বড় প্রজেক্টরের মাধ্যমে গণসংবর্ধনার গোটা কার্যক্রম দেখানোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর মাইকের মাধ্যমে সমাবেশে সমবেত অনুষ্ঠান শোনানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এজন্য সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও সংলগ্ন সড়কগুলোয় কয়েকশ' মাইক লাগানো হয়েছে।

রাজধানী সেজেছে বর্ণাঢ্য সাজে :গণসংবর্ধনা উপলক্ষে গোটা রাজধানীকে মনোরম ও বর্ণাঢ্য সাজে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। মহানগরীর সব সড়ক ও সড়কদ্বীপে ব্যানার-ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড এবং বড় বড় বিলবোর্ড ও ডিজিটাল সাইনবোর্ডে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিসহ সরকারের উন্নয়ন স্লোগান ও অর্জনের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। রাজধানীর মৎস্য ভবন, শেরাটন মোড়, শাহবাগ ও কারওয়ান বাজারসহ আশপাশের এলাকার রাস্তার পাশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিশ্বনেতাদের বড় আকারের বিভিন্ন ছবি সাজিয়ে রাখা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধারাও যাবেন জাতীয় পতাকা হাতে :আজকের গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জাতীয় পতাকা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পতাকা নিয়ে যোগ দেবেন মুক্তিযোদ্ধারা। গতকাল রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় কমিটির প্রস্তুতি সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। হারুন অর রশীদের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন সফিকুল বাহার মজুমদার টিপু, আনোয়ার হোসেন পাহাড়ী বীরপ্রতীক, মাহমুদ পারভেজ জুয়েল, রফিকুল ইসলাম, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম নয়ন প্রমুখ।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চারপাশের সড়কে যান চলাচলে বিধিনিষেধ :গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠান উপলক্ষে আজ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চারপাশের সড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ওইদিন দুপুর ১টা থেকে অনুষ্ঠান শেষ না হওয়া পর্যন্ত শাহবাগ থেকে মৎস্য ভবন ও টিএসসি থেকে দোয়েল চত্বর পর্যন্ত রাস্তা বন্ধ থাকবে। ঢাকা মহানগর পুলিশের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন