শিরোনাম :

দিনাজপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি, রেল যোগাযোগ বন্ধ


সোমবার, ১৪ আগস্ট ২০১৭, ০৬:১৭ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

দিনাজপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি, রেল যোগাযোগ বন্ধ

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। বিপদ সীমার ৭৮সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত পূর্নভবা নদীর পানি আর না বাড়লেও বাধ ভাঙ্গা পানিতে শহরের বেশীরভাগ এলাকা প্লাাবিত হয়ে পড়েছে।

সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক থাকলেও রোববর থেকে দিনাজপুরের সাথে রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম জানিয়েছেন আজ সোমবার সকাল পর্যন্ত বন্যার কারনে দিনাজপুরে বন্যায় ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। অপরদিকে বীরগঞ্জ উপজেলায় ভেসে যাওয়া এক যুবক এখন পর্যন্ত নিখোজ রয়েছে। জেলার প্রায় সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আশ্রয় কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

পূর্নভবা নদীর শহর রক্ষা বাধ এবং আত্রাই নদীর বাধ ভাঙ্গা পানি শহরের বালুবাড়ী, খালপাড়া, মালদহপট্টি, নিমতলা, চকবাজার, মির্জাপুর, শেখপুড়া পুলহাট, ঈদগাবস্তি, কসবা, রামনগর, সুইহারী, বড়বন্দর, ফকিরপাড়া এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়েছে। দিনাজপুর শহররক্ষা বাঁধসহ বেশ কয়েকটি নদীর বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় জেলার অধিকাংশ স্থান প্লাবিত হয়েছে। বাড়ি-ঘর ডুবে গিয়ে গৃহহীন হয়ে পড়েছে জেলার প্রায় ৬ লাখ মানুষ।

এদিকে সেনাবাহীনির সদস্যরা রবিবার দুপুর থেকে উদ্ধার কাজ শুরু করেছে। এ পর্যন্ত ৬৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্র গুলোতে ৯০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

বন্যার পানিতে দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের গুদাম ঘর ডুবে যাওয়ায় পরীক্ষার খাতাসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্রের নষ্ট হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক রবীন্দ্র নারায়ন ভট্টাচার্য।

জেলার ১৩টি উপজেলাসহ জেলা শহরের বেশির ভাগ এলাকায় বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে দিনাজপুর সদর, বিরল, কাহারোল, বীরগঞ্জ, খানসামা, ঘোড়াঘাট, নবাবগঞ্জ, চিরিরবন্দর ও পার্বতীপুর উপজেলা ।

ক্ষতিগ্রস্থ উপজেলায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অসংখ্য মানুষ। গৃহহীন এসব মানুষ আশ্রয় নিয়েছে বিভিন্ন উচু এলাকা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠনে। জেলার বেশির ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বানভাসী মানুষ আশ্রয় গ্রহণ করা ফলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্ধ রয়েছে শিক্ষা কার্যক্রম।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ফয়জুর রহমান জানান, জেলার সব নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পুনর্ভবা নদীর পানি বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার এবং আত্রাই নদীর পানি ৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।


দিনাজপুর শহররক্ষা বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় সেই বাঁধ সংস্কারে বিজিবি সদস্যদের মোতায়েন করা হয়। বিজিবি বাঁধটি সংস্কারে ব্যর্থ হওয়ায় দুপুরে বাঁধ সংস্কার এবং বানভাসী মানুষকে উদ্ধারে মোতায়েন করা হয় সেনাবাহিনী। মেজর তৌহিদের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের ৫২ জন সদস্য বাঁধ সংস্কার ও বানভাসী মানুষকে উদ্ধারের কাজ শুরু করেছে।

বন্যায় দিনাজপুরের অধিকাংশ সড়ক ও মহাসড়ক পানির নীচে তলিয়ে যাওয়ায় দিনাজপুর জেলার সঙ্গে বিভিন্ন উপজেলার সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। হিলি স্থলবন্দর পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় শনিবার থেকে বন্ধ রয়েছে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম। তবে দিনাপুরের সাথে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম জানিয়েছেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই এক লাখ ১০ হাজার টাকা এবং ৬৭ মেট্রিক টন চাল বন্যাদুর্গতদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও বন্যার্তদের জন্য ৫০ লাখ টাকা এবং ৩০০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ চেয়ে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

দিনাজপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠরিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি সোমবার (১৪ আগষ্ট) সকালে বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি বন্যায় দুর্গতদের মাঝে করেছেন ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন।

এদিকে পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুর ইসলাম মাহমুদ সোমবার দুপুরে দিনাজপুর শহরের পাশে পূণর্ভবা নদীর তীরে বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি সরকারের পক্ষ থেকে বন্যার্তদের জন্য সর ধরনের সাহায্যের আশ্বাস দেন। পরিদর্শণের সময় মন্ত্রীর সাথে ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর জোনের প্রধান প্রকৌশলী আজিজ মোহাম্মদ চৌধুরী, দিনাজপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ জামান আশরাফসহ অন্যান্য কর্মকর্তা।

পানিসম্পদ মন্ত্রীর সফর সঙ্গী পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর জোনের প্রধান প্রকৌশলী আজিজ মোহাম্মদ চৌধুরী জানান, আগামী দুইদিন পানি কমবে, তবে বৃষ্টিপাত হলে পানি বাড়তে পারে। তিনি বলেন, অল্প সময়ে বেশী বৃষ্টিপাতের ফলে ও নদীগুলো ধারন ক্ষমতার ৪/৫ গুন বেশী পানি হওয়ায় এবং উজান থেকে পানি আসায় বন্যা দেখা দিয়েছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন