শিরোনাম :

পীরগঞ্জে ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে ইটভাটা


বৃহস্পতিবার, ৫ এপ্রিল ২০১৮, ০২:৩৯ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

পীরগঞ্জে ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে ইটভাটা

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা: পীরগঞ্জে ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে ইটভাটা গড়ে উঠেছে।ইটভাটার নিয়ম নীতিমালা তোয়াক্কা না করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধ ভাবে ফসলি জমিতে ইটভাটা গড়ে তুলে ব্যবসা করছে।

ইটভাটার সংলগ্ন-পার্শ্ববর্তী কৃষি জমিতে কৃষকের রোপনকৃত ফসল তাদের সঠিক উৎপাদন করতে ব্যহত হচ্ছে এবং আম, লিচু ও অন্যান্য মৌসুমী ফল ধ্বংশ হচ্ছে।সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার পৌর শহরের পূর্ব উত্তর ও দক্ষিণ গুয়াগাঁও, চাপোড়, ভেলাতৈড় এলাকায় ৪ কিলোমিটার মধ্যে ৭টি ইটভাটা গড়ে উঠেছে, শহর থেকে দক্ষিণে মিত্রবাটি, নশিবগঞ্জ, জাবরহাট, বৈরচুনা ও কালিয়াগঞ্জ, ফুটানিটাউন এলাকায় ১৭টি ইটভাটা ফসলি জমিতে গড়ে উঠেছে।

ইটভাটা আইন ২০১৩ সংশোধনী নিয়মে স্থানীয় ইউ’পি চেয়ারম্যান এর অনুমোদন, জেলা প্রশাসক অনুমোদন আবশ্যক এবং পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র সংগ্রহে বাধ্যতামূলক।কিন্তু ইটভাটার মালিকগণ অনেকেই এসব নিয়ম নীতিমালা তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন ভাবে অর্থের বিনিময়ে ম্যানেজ করে তাদের রমরমা ব্যবসা চালিয়ে আসছে।চলতি ইটভাটা মৌসুমের মাঝ সময়ের জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর পঞ্চগড়-ঠাকুরগাঁও জেলা সহকারী পরিচালক মোঃ হেলাল উদ্দীন তিনি হঠাৎ একদিন একটি ইটভাটায় ভ্রাম্যমান অভিযান চালিয়ে জরিমানা করে অন্যান্য ইটভাটায় অভিযান না দিয়ে কৌশলে স্থানন্তর ত্যাগ করেন।

পরবর্তী সময়ে তিনি অভিযান বা ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এলাকার সচেতন মহলের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার বইতে থাকে। সচেতন মনে করেন কৃষি জমিতে ইটভাটা না করার মতামত পোষন করেন। অনেক কৃষক জানান বছরে বিভিন্ন ফসল উৎপাদন করি কিন্তু নায্যমূল্য পাই না, আরেক দিকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ থাকায় কিছুটা ক্ষতিগ্রস্থ হই, তৎসঙ্গে অবৈধ ইটভাটার কালো ধোয়া ও ছাইয়ে মরার উপর খরার ঘা নিয়ে অস্থিরতায় থাকি, এতে টার্গেট মাফি ফসল তুলতে পারি না। উপজেলা কৃষিবিদ ও কৃষি কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন বিষয়টি উদ্ধর্তন কতৃপক্ষের ব্যাপার।এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ্’র নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।

এ এইচ এল

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন