শিরোনাম :

বাংলাদেশ ও চীনের বিজ্ঞানীরা উন্মোচন করল মহিষের জীবন-রহস্য


বৃহস্পতিবার, ১ জুন ২০১৭, ০২:২৩ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

বাংলাদেশ ও চীনের বিজ্ঞানীরা উন্মোচন করল মহিষের জীবন-রহস্য

ডেস্ক প্রতিবেদন: বাংলাদেশ ও চীনের বিজ্ঞানীরা বিশ্বে সর্বপ্রথম মহিষের পূর্ণ জীবন-রহস্য উন্মোচনে সক্ষম হয়েছেন। এ উদ্ঘাটনকে বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশের অন্যতম বড় সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছে। জীববিজ্ঞানী, বায়ো-ইনফরমেটিশিয়ান ও তথ্য-প্রযুক্তিবিদদের সমন্বয়ে গঠিত একদল গবেষক মহিষের জেনোম উপাত্ত থেকে জৈবিক উপাদান শনাক্ত ও বিশ্লেষণ করেছেন। এ গবেষণায় পাওয়া উপাত্তগুলো মহিষের উন্নত ও অধিক উত্পাদনশীল জাত উন্নয়নে সহায়ক হবে।

আজ শুক্রবার রাজধানীর র্যাডিসন হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে চীনের বিজ্ঞানীদের সঙ্গে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীদের এ আবিষ্কারের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হয়।

গবেষক দলটির নেতৃত্বে ছিলেন বাংলাদেশের লাল তীর লাইভস্টক লিমিটেড এবং গণচীনের বিজিআইর বিজ্ঞানীরা। 'de novo sequencing'-এর সর্বাধুনিক ''Illumina's HiSeq" পদ্ধতিতে এ জীবন-রহস্য উন্মোচন করা হয়। এ গবেষণায় পাওয়া জিনের আকার ২ দশমিক ৯৪৬ এন। 'SOAP denovoc' পদ্ধতিতে জেনোমগুলো একত্রিত করা হয়। এ গবেষণায় মোট ২১ হাজার ৫৫০টি জিন শনাক্ত করা হয়।

বাংলাদেশের লাল তীর লাইভস্টক এবং গণ চীনের বেইজিং জেনোম ইনস্টিটিউটের (বিজিআই) যৌথ উদ্যোগে 'মহিষের (Bubalus bubalis) পূর্ণ জীবন-রহস্য উন্মোচন' শীর্ষক এ প্রকল্প পরিচালিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, 'বাংলাদেশের ভবিষ্যত্ উজ্জ্বল। দেশের যে বিজ্ঞানীরা মহিষের পূর্ণ জীবন-রহস্য উদ্ঘাটনে ভূমিকা রেখেছেন, তাদের কাছে আমরা সবাই কৃতজ্ঞ। এ আবিষ্কার দেশের উন্নয়নে বড় ভূমিকা রাখবে।'

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র-বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী বলেন, 'একবিংশ শতাব্দী হচ্ছে জ্ঞান-ভিত্তিক অর্থনীতির। এ আবিষ্কার বাংলাদেশের সাফল্যের একটি ইতিহাস হয়ে থাকবে।'

'লাল তীর ও বিজিআইর যৌথ আবিষ্কার, মহিষের জিন-নকশা উন্মোচন গবেষণা ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাফল্যের একটি মাইল-ফলক' উল্লেখ করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেশি-বিদেশি গবেষকরা।

বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জুন বলেন, 'এশিয়ার এ অংশের পরিবেশ ও আবহাওয়া মহিষের জন্য বিশেষ উপযোগী। এ গবেষণায় ভূমিকা রেখেছেন চায়নিজ বিজ্ঞানীরাও। যৌথ সহযোগিতার মাধ্যমে কাজ করলে বড় কিছু করা যায়।'

বাংলাদেশে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের চার্জ দি অ্যাফেয়ার্স জন এফ ড্যানিলজ বলেন, 'রয়েল বেঙ্গল টাইগারের পাশাপাশি বিশ্বে বাংলাদেশকে এখন মহিষের জন্যও চিনবে। বাংলাদেশের এ আবিষ্কার চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।'

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন লাল তীর লাইভস্টক লিমিটেডের চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু এবং লাল তীর সিড লিমিটেডের পরিচালক তাবিদ এম আউয়াল। ইত্তেফাক

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন