শিরোনাম :

“বিদ্যুৎ ও জ্বালানি গ্রাহকদের সন্তষ্টি বিধানকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে”


বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর ২০১৭, ০৫:১০ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

“বিদ্যুৎ ও জ্বালানি গ্রাহকদের সন্তষ্টি বিধানকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে”

ডেস্ক প্রতিবেদন: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি গ্রাহকদের সন্তষ্টি বিধানকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ঘরে ঘরে পৌছে দেয়ার জন্য আমরা কাজ করে যচ্ছি। আমাদের ২/৩ বছরের মধ্যেই লক্ষ্য পৌছানো সম্ভব হবে। বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার খরচের চেয়ে এটার প্রভাব কি হবে, অর্থনীতির কি অবদান রাখাবে সে বিষয়টিই মূললক্ষ্য ।

প্রতিমন্ত্রী আজ বিদ্যুৎ ভবনে কনজ্যুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) আয়োজিত “বিদ্যুতের দাম কমানোর প্রস্তাব” শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, দক্ষতা বাড়িয়ে সিষ্টেম লস কমানো বা মানব সম্পদ উন্নয়ন বর্তমানে অন্যতম চ্যালেঞ্জ। তাছাড়া দক্ষতা বাড়াতে যে বিনিয়োগ প্রয়োজ তা বের করাও একটি চ্যালেঞ্জ। গ্রাহক সেবার মান আরো বাড়িয়ে বিতরণ কোম্পানিগুলো দৃষ্টান্তমূলক অবদান রাখছে।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক এম শামসুল আলম। সেমিনারে বুয়েটের পেট্রোলিয়াম ও খনিজ সম্পদ কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ম তামিম বলেন, দক্ষতা উন্নয়ন ও এইচএফও /ডিজেল আমদানি মূল্যে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দিলে বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যয় হ্রাস পাবে।

এই বিষয়গুলো বাংলাদেশ এনার্জি রেগুরেটরি কমিশনের দেখা উচিত। ফোরাম ফর এনার্জি রিপোটার্স, বাংলাদেশ এর সভাপতি অরুণ কর্মকার বলেছেন, সেচ ও প্রান্তিক গ্রাহকদের ব্যয় ভুর্তিকি বাজেট হতে দেয়া যেতে পারে এবং দক্ষতার ভিত্তিতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে গ্যাস সরবরাহ করা যেতে পারে।

ক্যাব-এর সভাপতি গোলাম রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড-এর চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইন, বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক কৌশল বিভাগের অধ্যাপক কাজী দীন মোহাম্মদ খসরু, বাংলাদেশ সমাজতন্ত্রিক দলের বজলুর রশিদ ফিরোজ, সিপিবি‘র রুহিন হোসেন প্রিন্স, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বায়ক জোনায়েদ সাকী বক্তব্য রাখেন।

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন