ব্রেকিং নিউজ
বাংলাপ্রেস-এর ফেসবুক পেজটি হ্যাকড হওয়ায় আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত। পেজটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।
শিরোনাম :

'বছরের শেষেই মিলবে করোনার ভ্যাকসিন'


মঙ্গলবার, ৫ মে ২০২০, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

'বছরের শেষেই মিলবে করোনার ভ্যাকসিন'

নিউইয়র্ক: করোনা ভাইরাসের টিকা কবে আসবে বাজারে? তা নিয়ে স্পষ্ট ধারণা নেই কোনও দেশের গবেষকদের৷ ভ্যাকসিন তৈরির কাজে চীন, আমেরিকা, ব্রিটেনের মতো অনেক দেশই জোরকদমে নেমে পড়েছে৷ অনেকেরই ধারণা চলতি বছরের শেষেই মিলবে ভ্যাকসিন৷ আবার অনেকের মতে ভ্যাকসিন পুরোপুরি তৈরি হতে পরের বছর হয়ে যাবে৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) আবার আশঙ্কা প্রকাশ করেছে করোনার প্রতিষেধক হয়তো নাও মিলতে পারে৷ এক মরশুমেই হয়তো পুরোপুরি বিদায় নেবে না এই মারণ ভাইরাস৷ আগামী বছরেই আবার ফিরে আসতে পারে করোনা৷

লন্ডনের ইম্পিরিয়াল কলেজের অধ্যাপক ডেভিড নেবারো যিনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একজন দূত, তিনি বলেছেন, ‘‘ আমরা ধরে নিতে পারি না যে প্রতিষেধক অবশ্যই মিলবে৷ প্রতিষেধক না পাওয়ার ঘটনাও অতীতে অনেকবার ঘটেছে৷ ’’ উদাহরণ হিসেবে তিনি এইচআইভি-র কথা উল্লেখ করেছেন৷ এমনকী, ম্যালেরিয়া বা ডেঙ্গিকেও মুছে ফেলা যায়নি৷ প্রতি বছরই লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয় এর জন্য৷

করোনার টিকা নিয়ে গবেষণা ও তার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহে গতকাল, সোমবার ভিডিও কনফারেন্স করেছেন বিশ্বনেতারা৷ তাদের সবারই বক্তব্য যে এমন প্রতিষেধক আবিষ্কার করতে হবে যা জনস্বার্থে ব্যবহত হবে৷ এবং দাম সবার নাগালের মধ্যে থাকে৷ যাতে প্রত্যেকের কাছেই তা যেন পৌঁছতে পারে৷ নাহলে খুব দামি বা পাওয়াই যাচ্ছে না, এমন প্রতিষেধক দিয়ে কোনও লাভ নেই সাধারণ মানুষের৷ অতীতে অনেক সময়েই দেখা গেছে, কোনও ভ্যাকসিন যখন নতুন নতুন বাজারে আসে, তখন তার দাম অনেক বেশি হয়৷ ১৯২০ সালে একটা টিটেনাস ভ্যাকসিনের একটা শটের দামই ছিল ৩৫ ডলার থেকে কিছুটা কম৷ এইচপিভি ভ্যাকসিন ২০০৬ সালে সিঙ্গল ডোজের জন্য লাগত প্রায় ২৩০ মার্কিন ডলার৷

১৯৮৬ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে আমেরিকার শিশুদের সম্পূর্ণ রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা যুক্ত ভ্যাকসিনের দাম ১০০ ডলার থেকে বেড়ে ২০০০ ডলার পর্যন্ত হয়েছিল৷ তাই বাজারে একটা ভ্যাকসিনের দাম কত হবে, তা অনেকাংশে নির্ভর করে সে দেশের সরকারের উপরও৷ ধনী দেশগুলির সরকারের পক্ষেই ভ্যাকসিনের জন্য বেশি টাকা দেওয়া সম্ভব৷ যেমন হাম, পোলিও বা টিউবারকিউলোসিসের ভ্যাকসিন উন্নয়নশীল দেশগুলিতে ইউরোপ বা আমেরিকার উন্নত দেশগুলির তুলনায় ১০ শতাংশ কম দামে পাওয়া যায়৷

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন