শিরোনাম :

শৈলকুপায় আ.লীগ-বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ লেগেই আছে


সোমবার, ৩০ মে ২০১৬, ০৩:৪৪ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

শৈলকুপায় আ.লীগ-বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ লেগেই আছে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই শৈলকুপার বিভিন্ন ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের মাঠ দখলের লড়াই তীব্র হচ্ছে।

এ অবস্থায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কয়েকটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ সংঘাত লেগেই আছে।

আগামী ৪ জুন শৈলকুপার ১৪ টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মোট ১৪০ টি কেন্দ্রের মধ্যে সবগুলো কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপুর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে শৈলকুপা উপজেলা নির্বাচন অফিস। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাইদুর রহমানও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে নির্বাচনের দিনক্ষণ চুড়ান্ত হওয়ার বহু আগে থেকেই আবাইপুর, কাঁচেরকোল, মির্জাপুর, উমেদপুর ও বগুড়া ইউনিয়নে একাধিক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে।

এরপর মনোনয়ন চুড়ান্ত ও মনোনয়নপত্র দাখিলের পর থেকে শৈলকুপার ৭ টি ইউনিয়নে ছড়িয়ে পড়ে সংঘাত। পুলিশকে এ সব সংঘাত থামাতে বেগ পেতে হচ্ছে।

শৈলকুপা থানা পুলিশের দেওয়া তথ্য মতে, গত এক মাসের ব্যবধানে শৈলকুপার মির্জাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ফিরোজ ও একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মকবুল হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মফিজুল ও বিদ্রোহী প্রার্থী ফারুকের মধ্যে একাধিক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

গত কয়েকদিন ধরে সেখানে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে মারামারি লেগেই আছে। শনিবার রাতে নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নে এক সাংবাদিককে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। কদিন আগে নৌকায় ভোট দিতে রাজি না হওয়ায় কৌশুল্লা রানী নামে এক হিন্দু মহিলাকে মারধর করা হয়েছে।

উমেদপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবদার হোসেন মোল্লা প্রতিদ্বন্দ্বী জেপি (জাতীয় পার্টি মঞ্জু) প্রার্থী মিজানুর রহমানের মার্কেটে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেন। এছাড়া জেপি প্রার্থীর একাধিক প্রচার মাইক ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।

সারুটিয়া ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী আবুল হোসেনের সমর্থকদের মারধর করা হয়েছে। কাঁচেরকোল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মামুন জোয়ারদারকে মারধর করেছে একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর লোকজন। এই ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী ইলিয়াস হোসেনের সমর্থকদের হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে।

দিগনগর ইউনিয়নে তোজাম্মেল হোসেন পান্না খাঁর সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী জিল্লুর রহমানের সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়েছে। দুধসর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও একই দলের বিদ্রোহী প্রাথী সফিউল ইসলাম মিল্টন ও সোয়েবুর রহমানের সমর্থকরা মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন। নির্বাচনী মাঠ দখল নিতে সেখানেও সংঘর্ষ হয়েছে।

শৈলকুপার সবচয়ে ভয়ঙ্কর ইউনিয়ন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে আবাইপুর ইউনিয়ন। আবাইপুরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মুক্তার মৃধা ও একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হেলাল উদ্দীনের সমর্থকদের মধ্যে ১৫ টির বেশি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে শতাধিক ব্যক্তি আহত হওয়ার পাশাপাশি কয়েক কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট হয়েছে।

সর্বশেষ হাটফাজিলপুর, মিনগ্রাম ও আবাইপুরে তুমুল সংঘর্ষ হয়েছে। আবাইপুরের বিভিন্ন গ্রামে বিরাজ করছে উত্তেজনা। পান থেকে চুন খসলেই বেধে যাচ্ছে সংঘর্ষ। এ নিয়ে নৌকার প্রার্থী মুক্তার হোসেন মৃধা সাংবাদিক সম্মেলন করে পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলেছেন।

ভোটাররা জানান, আবাইপুর ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী হেলাল উদ্দীনের ভাই দেশের বড় ডেভলপার গ্রুপ বিশ্বাস বিল্ডার্সের মালিক হওয়ার সুবাদে নির্বাচনী মাঠে টাকা উড়ছে মুড়ি মুড়কির মতো। এতে কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন নৌকার প্রার্থী মুক্তার মৃধা। ইতিমধ্যে বিশ্বাস বিল্ডার্সের মালিক নজরুল ইসলাম দুলাল হেলিকপ্টারে এসে ভাইয়ের পক্ষে নির্বাচনী সভা করে সবার নজর কেড়েছেন।

এ বিষয়ে শৈলকুপা থানা পুলিশের ওসি মহিবুল ইসলাম জানান, ১৪ টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪/৫ টি ব্যতিত বাকীগুলোতে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে।

তিনি জানান, ‘কিছু ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থকরা বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করছে। আমরা শক্তভাবে তা দমনের চেষ্টা করছি।

এআর/এমকে

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন