শিরোনাম :

টেস্ট ক্রিকেটের ১৭ বছর পার করলো বাংলাদেশ


শুক্রবার, ১০ নভেম্বর ২০১৭, ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

টেস্ট ক্রিকেটের ১৭ বছর পার করলো বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক: টেস্ট ক্রিকেটে ১৭ বছর পার করলো বাংলাদেশ। ঐতিহাসিক সেই ১০ নভেম্বর, ২০০০ সাল। এক মাহেন্দ্রক্ষণে বহু দিনের লালিত স্বপ্ন, স্বাধীনতা পাওয়ার মত আনন্দে বিভোর হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশ প্রবেশ করে।    

যাদের হাত ছুঁয়ে বাংলাদেশ প্রবেশ করেছিল অভিজাত টেস্ট ক্রিকেটে তাদের ভুলবার নয়। তারা আজ খেলার মাঠে না থাকলেও আছেন ক্রিকেটের হৃদয়ে। ১৭ বছরের এই ইতিহাসের শুরুটা যারা করেছিলেন, তাদের প্রত্যেকেই বিদায় নিয়েছেন ক্রিকেট থেকে। আর তাদের ওই শুরুর ওপর দাঁড়িয়েই এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট।

ফিরে যাওয়া যাক সেই দিনটিতে। যার সূচনায় আজও সুনামের সহিত টিকে আছে বাংলাদেশ বিশ্ব ক্রিকেটে। ২০০০ সালের ১০ নভেম্বর থেকে ২০১৭ সালের ১০ নভেম্বর-এই ১৭ বছরে বাংলাদেশ টেস্ট খেলেছে ১০৪টি। ১৮ বছরে পা রাখলো টাইগাররা। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশ সমীহ জাগানো অবস্থানে যেতে পারলেও টেস্টে এখনও তা পুরোপুরি সম্ভব হয়নি৷ তবে সাদা পোশাকে বারবার বিশ্বকে জানান দিয়েছে নিজেদের ক্ষমতার, রেকর্ড গড়ে নিজেদের জাত চিনিয়েছে টাইগাররা৷ স্মরণীয় করে রাখতে জিতেছে নিজেদের খেলা শততম টেস্টটিও৷

২০০০ সালের ১০ নভেম্বর ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ৷ প্রতিপক্ষ ছিল ভারত৷ আগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ বিশ্ব ক্রিকেটকে চমকে দিয়ে অভিষেক ইনিংসেই করেছিল ৪০০ রান। টেস্ট অভিষেকে দলীয় সর্বোচ্চ রানের স্কোরটা জিম্বাবুয়ের (৪৫৬) রান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহটা বাংলাদেশের (৪০০)।

বাংলাদেশের পক্ষে আমিনুল ইসলাম বুলবুল করেছিলেন ১৪৫ রান৷ কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে সেই সাফল্য ধরে রাখা যায়নি৷ ফলে মাত্র ৯১ রানেই গুটিয়ে গিয়েছিল টেস্ট ক্রিকেটের আঁতুর ঘরে থাকা দলটি৷ সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে প্রথম টেস্টে টস করতে নেমেছিলেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়।

টেস্টে বাংলাদেশের প্রথম দল: শাহরিয়ার হোসেন, মেহরাব হোসেন, হাবিবুল বাশার, আমিনুল ইসলাম, আকরাম খান, নাঈমুর রহমান (অধিনায়ক), আল-শাহরিয়ার, খালেদ মাসুদ (উইকেটরক্ষক)। সোহাগ গাজী বিশ্বের প্রথম ক্রিকেটার যিনি এক ম্যাচে সেঞ্চুরির পাশাপাশি হ্যাটট্রিকও করেন৷ ২০১৩ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একই ম্যাচে সেঞ্চুরি করার পাশাপাশি তিনি হ্যাটট্রিক করেন।

মেহেদি হাসান মিরাজ: ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজে অভিষেক হয় তার। আর অভিষেক ম্যাচেই তুলে নেন ১৯ উইকেট৷ এর চেয়ে বেশি উইকেট নেয়া (অভিষেকে ও দুই টেস্টের সিরিজে) আর কোনো ক্রিকেটার বিশ্বে নেই৷
 
২০০০ সালের ১০ নভেম্বর ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ৷ প্রথম অধিনায়ক ছিলেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়৷ টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। প্রথম রানটি এসেছিল শাহরিয়ার হোসেনের ব্যাট থেকে।প্রথম বাউন্ডারি ও প্রথম ওভার বাউন্ডারি: শাহরিয়ার হোসেনের ব্যাট থেকেই আসে বাংলাদেশের প্রথম বাউন্ডারিটি আর আকরাম খানের ব্যাট থেকে আসে প্রথম ছক্কাটি। প্রথম অর্ধশতকের মালিক হাবিবুল বাশার সুমন। অভিষেক টেস্টে ১১২ বলে ১০টি বাউন্ডারিতে তিনি করেছিলেন ৭১ রান।

প্রথম টেস্ট ম্যাচেই আমিনুল ইসলাম বুলবুল ১৪৫ রান করেছিলেন৷ তার ৫৩৫ মিনিটের দীর্ঘ এই ইনিংসে ছিল ১৭টি চারের মার। ৩৮০টি বল মোকাবেলা করে বুলবুল তার ইনিংসটি সাজান। তিনি ছিলেন ক্রিকেট ইতিহাসের তৃতীয় ক্রিকেটার, যিনি দেশের অভিষেক টেস্টে সেঞ্চুরি করেন।

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম বলটি করেছিলেন হাসিবুল হোসেন। অভিষেক টেস্টে তিনি প্রথম বলটি করেছিলেন ভারতের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শিবশঙ্কর দাশকে। ভারতের শিবশঙ্কর দাশকে বোল্ড করেছিলেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়।

অভিষেক টেস্টে অধিনায়ক নাঈমুর রহমান তার অফ স্পিনে ৪৪.৩ ওভার থেকে ১৩২ রান খরচায় নিয়েছিলেন ৬ উইকেট। আর টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম পেসার হিসেবে ৫ উইকেট পেয়েছিলেন মঞ্জুরুল ইসলাম। ২০০১ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বুলাওয়েতে ৬ উইকেট শিকার করেছিলেন ৮১ রানের বিনিময়ে।

২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে ২২৬ রানে জিতেছিল বাংলাদেশ৷ ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ জিতেছিল ১-০তে৷ ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ ২-০তে জয়৷ টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম ১০০ উইকেট মোহাম্মদ রফিকের। এরপর এই কীর্তিতে যোগ দেন সাকিব আল হাসান।

১৯৬ ওভার ব্যাটিং করে ২০১৩ সালের মার্চে গলে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৬৩৮ রান৷ টেস্টে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম ব্যক্তিগত হাজার রান সংগ্রাহক হাবিবুল বাশার। ৫০ টেস্টের ক্যারিয়ারে ৩০.৮৭ গড়ে তার সংগ্রহ ৩০২৬ রান। ২৪টি ফিফটির বিপরীতে তার শতরান ৩টি। ২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০০ রান করেছিলেন মুশফিকুর রহিম৷ ২০১৪ সালে বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে সাকিব আল হাসান জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই সাফল্য পান৷

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন