শিরোনাম :

গুগল কর্মীরা যৌন হয়রানির শিকার


শনিবার, ৩ নভেম্বর ২০১৮, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

গুগল কর্মীরা যৌন হয়রানির শিকার

অনলাইন ডেস্ক: কয়েকজন সিনিয়র কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সহকর্মীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠার পর নজিরবিহীন প্রতিবাদ জানালেন গুগলের কর্মীরা।

যুক্তরাষ্ট্রের এই প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের বহু কর্মী কাজ ছেড়ে নেমে এলেন রাজপথে। এই প্রতিবাদে শামিল হন আমেরিকা, ব্রিটেন, ভারত, জাপান, চীন, সিঙ্গাপুরসহ বেশ কয়েকটি দেশের গুগলের কর্মীরাও।

কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির পাশাপাশি বৈষম্য, বর্ণবাদ এবং অনিয়ন্ত্রিত ক্ষমতারও প্রতিবাদ জানান তাঁরা। গুগল কর্মীদের এই প্রতিবাদ ‘গুগল ওয়াকআউট’ নামে পরিচিতি পেয়েছে। আমেরিকার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় ‘হ্যাশট্যাগ গুগল ওয়াকআউট (#googlewalkout)’ দিয়ে বিপুল হারে পোস্ট করছেন ব্যবহারকারীরা।

ভারতে গুগলের দেড়শো কর্মী কাজ বয়কট করেছেন। সিঙ্গাপুর ও জাপানের টোকিওতে প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়েও একইভাবে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। লন্ডনে গুগলের কার্যালয় থেকে বেরিয়ে এসেছেন বেশ কিছু কর্মী। সুইজারল্যান্ডের জুরিখ কার্যালয়েও একই অবস্থা।

জার্মানির বার্লিনেও অফিস বর্জনের মাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছেন কিছু কর্মী। নিউ ইয়র্ক টাইমস–এর প্রতিবেদন বলছে, আয়োজকদের আশা, আগামীদিনে বিশ্বজুড়ে গুগলের দেড় হাজারের বেশি কর্মী প্রতিবাদে অংশ নেবেন। তাঁদের বেশিরভাগই হবেন মহিলা কর্মী।

মহিলা ও অপ্রাপ্তবয়স্কদের প্রতি আচরণের উন্নতি এবং গুগলের মূলমন্ত্র ‘খারাপ কিছু করো না’ নিশ্চিত করার দাবিতে গুগলের ভিতরে কয়েক মাস ধরে অসন্তোষ বাড়ছিল। চলতি বছরের শুরুর দিকে অভ্যন্তরীণ পর্যায়েই কর্মীরা প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এই অসন্তোষ তীব্রতা পায় গত সপ্তাহে নিউ ইয়র্ক টাইমস একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পর।

ওই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, গত দশকে অন্তত তিন কর্তার বিরুদ্ধে ওঠা যৌন হয়রানির অভিযোগের ক্ষেত্রে নীরব ছিল গুগল। তাঁদের একজন অ্যান্ড্রয়েড নির্মাতা অ্যান্ডি রুবিন, যিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কর্মরত অবস্থায় ২০১৪ সালে গুগল ছাড়েন। সেই সময় তাঁকে ৯ কোটি মার্কিন ডলার দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

কিন্তু রুবিন ওই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। সিএনএন জানায়, চলতি সপ্তাহে গুগল এক্সের কর্তা রিচার্ড দ্যভল পদত্যাগ করেন। নিউ ইয়র্ক টাইমস–এর প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, তিনি এক চাকরিপ্রার্থীকে যৌন হয়রানি করেছেন। রিচার্ড অবশ্য চাকরি ছাড়ার সময় কোনও অর্থ পাননি।

গুগলের প্রধান কর্তা সুন্দর পিচাই এক বিবৃতিতে কর্মীদের প্রতিবাদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বলেছেন, ‘কর্মীরা গঠনমূলক পরিকল্পনা সামনে এনেছেন। প্রতিষ্ঠান কর্মীদের কথা শুনছে, যাতে এসব পরিকল্পনা অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া যায়।’ তিনি বলেন, ‘আমরা প্রতিবাদ কর্মসূচির ব্যাপারে অবগত এবং কর্মীরা যদি প্রতিবাদে শামিল হতে চান, তাঁরা সমর্থনও পাবেন।’

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন