শিরোনাম :

শৈলকুপায় প্রতিবন্ধী শিশুকে হত্যার অভিযোগে সৎ মা আটক


শনিবার, ২৮ মে ২০১৬, ০৮:১৭ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

শৈলকুপায় প্রতিবন্ধী শিশুকে হত্যার অভিযোগে সৎ মা আটক

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: মুখের মধ্যে মশারি ও কাপড় দিয়ে নির্যাতন করে ২বছরের কন্যা শিশুকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে সৎ মার বিরুদ্ধে।

পুলিশ ঘাতক মা পারুলা বেগমকে আটক করেছে। শৈলকুপার সাধুহাটি গ্রামে এ বর্বর ঘটনা ঘটেছে।

গত ১৩ দিন আগে শৈলকুপার সাধুহাটি গ্রামের মজনু মজিদের দ্বিতীয় স্ত্রী পারুলা বেগমের হাতে নির্যাতনের শিকার হয় ২ বছরের শিশু মুসলিমা। এই সৎ মা তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে মুখের মধ্যে মসারী ও কাপড় গুজে দেয়।

শিশুটির বাবা মজনু তা টের পেয়ে প্রতিবেশীদের সহযোগীতায় মুমূর্ষ অবস্থায় বাচ্চাটিকে শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে, সেখান থেকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে, তারপর নিয়ে যাওয়া হয় কুষ্টিয়া মেডিকেল করেজ হাসপাতালে। এর পর পরিপূর্ণ চিকিৎসা শেষ না হতেই বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

পূনরায় পূর্বের তথ্য গোপন করে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় শিশুটিকে। ১৪ দিন পর শিশুটি শনিবার সকালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে সেখানে।

শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার মিথিলা আহমেদ জানান, শিশুটির গলার শ্বাসনালী ক্ষতিগ্রস্থ ছিল, তার মুখের মধ্যে কাপড়, মশারি দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করা হতে পারে বলে শিশুটির পরিবারের উদ্ধৃতি দিয়ে ডাক্তার এ কথা জানান।

৬ মাস আগে প্রথম স্ত্রী স্ট্রোকে মৃত্যুর পর গত ২মাস আগে পারুলা বেগম কে বিয়ে করে স্বামী মজনু মজিদ। বিয়ের পর শিশুটির দেখা শুনার ভার নেয় দ্বিতীয় স্ত্রী। এরপর গত ১৩ দিন আগে মুখের মধ্যে মশারি ঢুকিয়ে হত্যা চেষ্টা চালানো হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এ ঘটনার বিচার দাবি করেছে স্বজনরাও। সৎ মা পারুলা পূর্বেই জানিয়েছিলেন, তিনি তাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে এটি করেননি, শিশুটি পায়খানা গালে নিয়েছিল, তিনি সেটি পরিস্কার করছিলেন, কিন্তু তার উপর হত্যা চেষ্টার মিথ্যা অভিযোগ দেয়া হচ্ছে।

শৈলকুপা থানার ওসি মহিবুল ইসলাম বলেন, সৎ মায়ের হাতে নির্যাতনের পরপরই শিশুটির বাবা গত ১৬মে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিল তার দ্বিতীয় স্ত্রী পারুলা বেগমের বিরুদ্ধে। দ্বিতীয় স্ত্রী কে আগেই আটক করা হয়েছে।

এআর/এমকে

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন