শিরোনাম :
   জাগো বাংলাতে সাংবাদিকতায় চাকরির সুযোগ    ইরানকে নিয়ে সমালোচনার কড়া জবাব দিলেন হাসান রুহানি    রোহিঙ্গা সংকট: নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান    সু চিকে ‘যুদ্ধাপরাধী’ হিসেবে ফৌজদারি আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর সুপারিশ    আজকের রাশিফল: ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার, ২০১৭    নিজেদের মাঠে বেটিসের কাছে হেরে গেল রিয়াল মাদ্রিদ    মিয়ানমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত: জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান    রোহিঙ্গাদের সহায়তায় ২৬২ কোটি টাকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র    রোহিঙ্গা হত্যার প্রতিবাদে বরিশালে ধ্রুবতারার মানববন্ধন অনুষ্ঠিত    সাপাহারে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তাগুলো  দ্রুত সংস্কারের দাবী এলাকাবাসীর 

মেয়েকে ৪ তলা থেকে ফেলে দিলেন মা


মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট ২০১৭, ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

মেয়েকে ৪ তলা থেকে ফেলে দিলেন মা

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রতিটি সন্তানের জন্য নিরাপদ স্থান মায়ের কোল! কিন্তু সেই মা যদি সন্তানকে হত্যা করেন তবে নিরাপদ স্থান আসলে কোথায়? অন্তত ভারতের বেঙ্গালুরুতে ৭ বছরের এক শিশু নিহত হওয়ার পর সেই প্রশ্নই স্থানীয়দের ভেতর দেখা দিয়েছে!

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে সোমবার প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বেঙ্গালুরুর জেপিনগরের জারাগানাহাল্লি এলাকায় বাসিন্দা এক মা তার ৭ বছরের শিশুকে ৪ তলা ভবনের উপর থেকে নীচে ফেলে হত্যা করেন। প্রথমবার নীচে ফেলার পরও শিশুটির শরীরে প্রাণ থাকায় আবারও একই কাজ করেন সেই মা।

রোববার দুপুরে মায়ের হাতে নৃশংসভাবে মেয়ের হত্যার দৃশ্য দেখে বাকরুদ্ধ হয়ে যান স্থানীয়রা।প্রতিবেদনে বলা হয়, ৭ বছরের শ্রেয়া সরকার আংশিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় সে কথা বলতে পারত না।মা স্বাতী সরকার তাকে কথা বলানোর চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন।

কিন্ত কথা বলতে না পেরে সেদিন অস্থির হয়ে ওঠে শ্রেয়া।মেয়েকে শান্ত করতে না পেরে একসময় চারতলা বাড়ির ওপর থেকে প্রথমে তাকে ছুঁড়ে ফেলে দেন মা।দুপুর সাড়ে তিনটে নাগাদ এমন ঘটনা দেখে প্রতিবেশীরা প্রথমে ভেবেছিলেন শ্রেয়া ওপর থেকে পড়ে গেছে।মেয়েকে উদ্ধার করতে মা স্বাতীকে নীচেও নামতে দেখেন তারা।কিন্তু ওই ঘাতক মা রক্তাক্ত মেয়েকে ওপরে নিয়ে গিয়ে জামা বদলে ফের ওপর থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিলে তাদের ভুল ভাঙে।প্রথমবার বেঁচে গেলেও, পরেরবার নীচে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যু হয় শ্রেয়ার।

স্থানীয়রা জানান, মেয়েকে হত্যা করে পালানোর চেষ্টা করেছিলেন স্বাতী। কিন্তু তখনই তাকে ধরে ফেলে প্রতিবেশীরা।পুলিশে খবর দেন তারাই।প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে মেয়েকে নিয়ে হতাশায় ভুগছিলেন স্বাতী। দশ বছর আগে পশ্চিমবঙ্গ থেকে সপরিবারে বেঙ্গালুরু আসেন তারা। দু’বছর আগে স্বাতী একটি স্কুলে পড়াতেন। তার স্বামী একটি বেসরকারি সংস্থায় বিজনেস অ্যানালিস্টের কাজ করেন।কিন্তু বছরখানেক আগে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়।অবশ্য স্বাতী ও তার মেয়েকে নিয়মিত অর্থসাহায্য পাঠাতেন ওই ব্যক্তি।এই ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে।তদন্তও শুরু করেছে পুলিশ।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন