শিরোনাম :

বরিশালে নিহত মোক্তার সর্ম্পকে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল মেয়ে মিলি


শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০১৭, ০৫:৫৬ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

বরিশালে নিহত মোক্তার সর্ম্পকে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল মেয়ে মিলি

বরিশাল প্রতিনিধি:পারিবারিক কলহের জেরে মোক্তার ব্যাপারী খুনের ঘটনার সূত্রপাতের বিষয়ে ভিন্নতর তথ্য দিয়েছেন নিহতের একমাত্র মেয়ে তানজিলা আক্তার মিলি।

তিনি দাবী করেছেন, পারিবারিক কলহের জের দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকলেও সেই রাতে তার বাবার আচরণের কারনে এমন ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে। মিলি দাবী করেছে, রাত তিনটার দিকে তার পিতা তার ঘরে ঢুকে বিভিন্ন স্থানে স্পর্শ করতে থাকে। তখন মিলি চিৎকার করলে তার মা মুনিরা বেগম জেগে উঠে বিষয়টি জানতে চায়। এনিয়ে মা-বাবার মধ্যে প্রথমে তর্কাতর্কি পরে ধ্বস্তাধস্তি হয়। এসময়ে মা নিয়ন্ত্রন করতে না পেরে দা দিয়ে পিতা মোক্তার ব্যাপারীকে আঘাত করতে থাকে। পুলিশের হাতে যেদিন আটক হয় সেদিন এমন তথ্য গণমাধ্যমকর্মীদেও প্রদান করে মিলি।

গ্রেফতারকৃত মিলি ও তার মা মুনিরা বেগম শুক্রবার আদালতে হত্যাকান্ডের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ শাহ-আলম। তিনি মিলির বক্তব্যের বিষয়ে বলেন, ঘটনার সময়ে যেহেতু ওই পরিবারের অর্থাৎ ঘাতক এবং নিহত ছাড়া কেউ ছিল না ফলে এখনই কারও বক্তব্যের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া যাচ্ছে না।

মিলি এমনটা পুলিশের কাছেও তথ্য দিয়েছে বলে শাহ-আলম বলেন, তবে গতকাল আদালতে কি বর্ণণা দিয়েছে তার অনুলিপি হাতে না পেলে সুর্নিদিষ্টভাবে কিছুই বলা যাচ্ছে না। ওদিকে মৃত্যুর পূর্বে মোক্তার আলীকে দেখে চরবাড়ীয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য জাহিদুল আলম তুহিন।

তিনি জানান, সকাল পৌনে ৭টার দিকে মনিরা বেগম তাকে ফোন দিয়ে বলে, সে তার স্বামীকে কুপিয়েছে। তাকে ওই বাড়িতে যাওয়ার অনুরোধ করে মনিরা বেগম। জাহিদুল আলম বলেন, তিনি ব্যাপারী বাড়িতে গিয়ে দেখেন, ঘরের দরজার সামনে মোক্তার ব্যাপারী রক্তাক্ত অবস্থায় হামাগুড়ি খাচ্ছে। তার মাথায় ও পিঠে ধারালো অস্ত্রের একাধিক আঘাত দেখা গেছে। তখন স্ত্রী ও দুই সন্তন ঘরের মধ্যে বসা ছিল।

তিনি স্থানীয়দের সহায়তায় মোক্তার ব্যাপারীকে অ্যাম্বুলেন্সে শেবাচিম হাসাতালে নিয়ে গেলে সকাল ৮টায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বরিশাল সদর উপজেলার চরবাড়িয়া ইউনিয়নের চরবাড়িয়া গ্রামে ২৬ অক্টাবর সকালে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহতের বোন শিল্পি বেগম বাদী হয়ে মোক্তার বেপারীর স্ত্রী মুনিরা বেগম ও মেয়ে তানজিলা আকতার মিলিকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় ওই দুইজন গ্রেফতার রয়েছে। মিলি বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তাক্ত একটি দা ও একটি সর্ত্তা (সুপারী কাটার ধারালো অস্ত্র) জব্দ তালিকায় রেখেছে পুলিশ।

কাউনিয়া থানার ওসি মোঃ নূরুল ইসলাম এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, মনিরা বেগম তার স্বামীকে কুপিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তবে সন্তানরা হত্যার সঙ্গে জড়িত ছিলনা বলে সে দাবী করছে। ওসির ধারনা, সন্তানদের রক্ষার জন্য মনিরা বেগম পুলিশকে মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে।

নিহত মোক্তার ব্যাপারী চরবাড়িয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বোর্ড স্কুল সংলগ্ন আফেজ উদ্দিন ব্যাপরীর ছেলে। সে পেশায় রাজমিস্ত্রী ছিল। বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালের সার্জারী বিভাগের রেজিস্ট্রার ডাঃ ইকতিয়ার আহসান জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ ও মাথায় ধাড়ালো অস্ত্রের আঘাতে মোক্তার ব্যাপারীর মৃত্যু ঘটেছে।

নিহত’র বোন শিল্পি বেগম জানান, বানারীপাড়া উপজেলার চাখারের মজিদ হাওলাদারের মেয়ে মুনিরা বেগমের সঙ্গে প্রায় ২০ বছর আগে মোক্তারের বিয়ে হয়।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন