শিরোনাম :

#MeToo-র নেপথ্যে


রবিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০৪:১৯ অপরাহ্ণ, বাংলাপ্রেস ডটকম ডটবিডি

#MeToo-র নেপথ্যে

ডেস্ক: #MeToo আন্দোলনে একটু একটু করে সরব হয়েছেন অনেকেই৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রায়ই ঝড় উঠছে এই #MeToo-র৷ আর সেই ঝড়ে একটার পর একটা উইকেট পড়ছে৷ তা সে ছবির জগতই হোক বা ক্রীড়া জগত অথবা রাজনৈতিক মহল, কেউই এই আঁচ থেকে রক্ষা পাচ্ছে না৷ কিন্তু এই #MeToo-র নেপথ্যে অর্থাৎ এই আন্দোলনের পথিকৃৎ কে ছিলেন জানেন?

২০০৬ সালে প্রথমবার #MeToo প্রকাশ্যে আসে৷ তারপর থেকেই এই অভিযান শুরু৷ আমেরিকার জনপ্রিয় সোশ্যাল অ্যাক্টিভিস্ট তারানা বুর্ক এই আন্দোলন প্রথম শুরু করেন৷ যৌন হেনস্তা এবং মহিলাদের বিরুদ্ধে হওয়া অন্যায়ের কথা প্রকাশ্যে তুলে আনার জন্য তিনিই প্রথম উৎসাহিত করতে শুরু করেন সকলকে৷ যে মেয়েরা কোনও না কোনও সময় এই যৌন হেনস্তার মুখে পড়েছেন তাদের এই #MeToo-তে সাড়া দেওয়ার অনুপ্রেরণা দেন তিনি৷

প্রসঙ্গত, #MeToo নামের একটি ডকুমেন্টারি ফিল্মও তৈরি করা হয়েছিল, যেখানে ১৩ বছরের এক নাবালিকা জানিয়েছিল সে কিভাবে যৌন হেনস্তার শিকার হয়েছিল৷ তারানা বুর্কও এমন হেনস্তার শিকার হয়েছিলেন৷ তিনি জানান, ৬ বছর বয়সে তাঁর ওপর যৌন অত্যাচার চলে৷ প্রতিবেশী একটি ছেলে তাঁকে ধর্ষণ করেছিল৷ এবং বেশ কয়েক বছর ধরে তার ওপর এই যৌন অত্যাচার হয়েছিল৷

২০১৭ সালে #MeToo ফের একবার উঠে আসে৷ হলিউডি সেলেব এলিসা মিলানো #MeToo-কে সঙ্গী করে মহিলাদের বিরুদ্ধে হওয়া এই হেনস্তায় সরব হয়েছিলেন৷ তিনি ২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর ট্যুইট করে লিখেছিলেন, যদি আপনিও যৌন অত্যাচচারের শিকার হয়েছেন তাহলে বলুন এবং লিখুন #MeToo অর্তাৎ আমিও৷

এরপরেই হলিউড থেকে তা ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে থাকে৷ এবং ২০১৮ অর্তাৎ চলতি বছরে ভারতে যেন এক ঝড় হিসেবেই দেখা দিয়েছে এই #MeToo.

এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন